Select Page

অন্য মানুষ: কাজী মারুফের নিজস্বতা

অন্য মানুষ: কাজী মারুফের নিজস্বতা

অন্য মানুষ; পরিচালনা: কাজী হায়াৎ; শ্রেষ্ঠাংশে: কাজী মারুফ, শাবনূর, শাকিল খান, রাজিব, ডন, জামিলুর রহমান শাখা প্রমুখ; মুক্তি: ১৫ নভেম্বর ২০০৪

কাজী মারুফের ক্যারিয়ারে অন্যতম সেরা অভিনয়ের ছবি ‘অন্য মানুষ’। পরিচালনা কাজী হায়াৎ। ছবিটি ধানুশের তামিল মুভি ‘Kaadhal Kondein’ থেকে প্রথমে বাংলাদেশে ২০০৪ সালে আনঅফিসিয়াল রিমেক হয়েছে তারপর ২০১০ সালে টলিউডে ‘অমানুষ’ নামে রিমেক হয় যেটি সোহমের উল্লেখযোগ্য ছবি ছিল।

ছবিতে প্রধান চরিত্রে কাজী মারুফ। ছবির নাম দেখানোর সময়ই ‘অন্যমানুষ’-এর ভূমিকায় কাজী মারুফ এভাবে দেখানো হয়।

গল্প অনুযায়ী মারুফ সাইকো চরিত্রে থাকে। তার অল্পেই ভয় পাওয়ার মতো সমস্যা ছিল। নতুন জায়গায় ভর্তির পর সহপাঠী শাবনূরের সাথে পরিচিত হলে তার জীবনে পরিবর্তন আসতে শুরু করে। তারপর একসময় সে শাবনূরকে ভালোবেসে ফেলে কিন্তু শাবনূর কি তাকে ভালোবাসে নাকি শুধু বন্ধু মনে করে! ওদিকে শাকিল খানকে ঘিরে নতুন একটি মোড় নেয় ছবির গল্প এবং মারুফেরও নতুন বৈশিষ্ট্য ফুটে ওঠে। ছবি হয়ে ওঠে জমজমাট। শেষ পর্যন্ত ছবিটি ট্রাজিক অবস্থার দিকে যায়।

ছবিতে সবচেয়ে আকর্ষণীয় দৃশ্য ছিল মারুফ ক্লাসের মধ্যে একাই শাবনূরকে কল্পনা করে কথা বলে যাতে সে ফ্রি হতে পারে তার সাথে এবং সবার সাথে মিশতে পারে। শাবনূর ক্লাসরুমের গেটে আড়ালে দাঁড়িয়ে মারুফের এই সরলতা দেখে অবাক হয় এবং নিজে বন্ধুত্ব করে। খুবই ইমোশনাল ছিল দৃশ্যটি। ছবির শেষটা প্যাথেটিক।

অবশ্যই ছবির সেরা পারফর্মার ছিল মারুফ। তার খোঁচা খোঁচা দাড়ির মফস্বলী লুক ছবির গল্প ও চরিত্রের সাথে পারফেক্ট ছিল। তার চরিত্রে ন্যাচারাল ট্যালেন্টের একটা বিষয় দেখানো হয়েছে। ক্লাসরুমে যে ইকুয়েশন কেউ পারছে না সেটা সে মনে মনে করে ফেলে এবং শিক্ষক ব্ল্যাকবোর্ডে করে দেখাতে বললে মুখস্থবিদ্যার মতো লিখে দেখায় যা দেখে ক্লাসের বাকিরা হা করে থাকে। শাবনূরের সাথে শাকিলের পরিস্থিতিমতে রোমান্টিক মুহূর্তগুলোতে মারুফের চাপা কান্নার অভিনয় ছিল অনবদ্য। ডনের সাথে তার ফুটবল নিয়ে ফাইটিংটাও ছিল উপভোগ্য এবং ফাইটিং-এ তার দক্ষতা লক্ষণীয়। শাবনূরের চরিত্রটি মারুফকে প্রথমত পরিবর্তিত হতে সাহায্য করেছে আবার তার জন্য মারুফ সাইকো আচরণ বৃদ্ধিও করেছে। লিজেন্ড রাজিবের শেষ ছবি ছিল, ডাবিং করে যেতে পারেননি তাই অন্যের কণ্ঠ ব্যবহৃত হয়েছে।

তামিলটা অবশ্যই বেস্ট তবে টলিউডের সাথে তুলনামূলক বিচারে মারুফের লুক ও অভিনয়ের ন্যাচারালিটি বেটার মনে হয় সোহমের ‘অমানুষ’-এর তুলনায়। তবে সোহমও অবশ্যই দুর্দান্ত ছিল।

কাজী মারুফ প্রথমদিকের কয়েকটা ছবিতে রিপিট সমস্যা ব্যতীত ন্যাচারাল অভিনয় করেছে তার মধ্যে ‘অন্য মানুষ’ একটি। মারুফের নিজস্বতা চিহ্নিত ছবি হয়েও থাকবে ছবিটি।


লেখক সম্পর্কে বিস্তারিত

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র গত শতকে যেভাবে সমৃদ্ধ ছিল সেই সমৃদ্ধির দিকে আবারও যেতে প্রতিদিনই স্বপ্ন দেখি। সেকালের সিনেমা থেকে গ্রহণ বর্জন করে আগামী দিনের চলচ্চিত্রের প্ল্যাটফর্ম গড়ে উঠুক। আমি প্রথমত একজন চলচ্চিত্র দর্শক তারপর সমালোচক হিশেবে প্রতিষ্ঠিত হবার স্বপ্ন দেখি। দেশের সিনেমার সোনালি দিনের উৎকর্ষ জানাতে গবেষণামূলক কাজ করে আগামী প্রজন্মকে দেশের সিনেমাপ্রেমী করার সাধনা করে যেতে চাই।

মন্তব্য করুন

Shares