Select Page

ওয়েব সিরিজ ‘বুকের মধ্যে আগুন’ নিয়ে সালমানভক্তের সমালোচনা

ওয়েব সিরিজ ‘বুকের মধ্যে আগুন’ নিয়ে সালমানভক্তের সমালোচনা

ভারতীয় প্লাটফর্ম হইচইয়ের জন্য তানিম রহমান অংশ নির্মাণ করছেন ‘বুকের মধ্যে আগুন’ শিরোনামের ওয়েব সিরিজ। অভিনয়ে আছেন অপূর্ব, তমা মির্জা, তৌকীর আহমেদসহ একঝাঁক তারকা।

অমর নায়ক সালমান শাহর জীবন অবলম্বনে এই সিরিজ নির্মাণের গুঞ্জন উঠেছে এরই মধ্যে। পরিচালক অংশুও এ বিষয়ে মতামত জানিয়েছেন। একই প্রসঙ্গে আপত্তি তুলেছেন সালমান ভক্ত মাসুদ রানা নকীব।

উল্লেখ সালমান শাহর একটি সিনেমার নাম ‘বুকের ভেতর আগুন’। ‘বুকের মধ্যে আগুন’ সিরিজের সিনোপসিসে হইচই লিখেছে, ‘একজন স্টার। একজন আইকন। একজন লিজেন্ড। নব্বই দশকের একজন সুপারস্টারের রহস্যজনক মৃত্যু দেশের মানুষকে স্তব্ধ করে দেয়। যদিও বলা হয় এটি আত্মহত্যা কিন্তু অনেকেরই বিশ্বাস এটি ছিল একটি হত্যাকান্ড। কী হবে যখন একজন পুলিশ অফিসার যে নিজেও কিনা সেই সুপারস্টারের একজন ফ্যান, এই মৃত্যরহস্য উদ্ঘাটনে নামে?’

এ বিষয়ে সংবাদমাধ্যমকে পরিচালক অংশু বলেন, জিনিসটা দেখতে হয়তো একইরকম লাগবে কিন্তু এটি একটি ফিকশন। তার (সালমান শাহ) সাথে হয়তো কিছুটা মিলে যাবে কিন্তু এটি তার ঘটনা নয়।

আরো বলেন, ‘বুকের মধ্যে আগুন’ দেখার পর কেউ মিল খুঁজে পেলে যে যার মতো করে ব্যাখ্যা করবে। সেটাই আনন্দদায়ক হবে। আমি এবং নির্মাণ সংশ্লিষ্টদের জায়গা থেকে বলবো, এই গল্প থেকে যদি কেউ অন্য ঘটনার মিল খুঁজে পায়, এটা একান্তই তার ভাবনা। তবে কোনো ইঙ্গিতপূর্ণ কিছু দেখলে হবে না।

কিন্তু মাসুদ রানা নকীবের সিরিজের চরিত্রের নাম নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘সালমান – আরমান, সামিরা – সাবিনা, শাবনূর – শবনম মানে আরমান, সাবিনা ও শবনম হচ্ছে আসল তিন চরিত্র।’

আরো বলেন, ‘খুব সামান্য তার (সালমান শাহ) ঘটনার সাথে মিল রেখে অধিকাংশই তাদের কল্পনার গল্পে নির্মিত হয়েছে বুকের মধ্যে আগুন। তাই এই সিরিজ নিয়ে সালমান শাহ্ ভক্তদের খুব উচ্ছ্বসিত হওয়ার কিছুই নেই।’

সালমান শাহর জনপ্রিয়তা এখনো ব্যবসায়িকভাবে কাজে লাগানো হয়। কিন্‌তু তাকে নিয়ে কেউ আগ্রহ দেখাননি বলে অভিযোগ নকীবের।

তিনি বলেন, ‘প্রোডাকশনের ব্র্যান্ডিংয়ের কৌশল হিসেবে চিত্রনায়ক সালমান শাহ্’র নাম ব্যবহার করা। কিন্তু আপাদমস্তক সালমান শাহ্কে নিয়ে গবেষণা করে শুধুমাত্র তাঁর ব্যক্তিগত জীবন ও সিনেমা ক্যারিয়ারের ওপর কোনো প্রোডাকশন কেউ নির্মাণ করে না। কারণ, এদের কাছে দিনশেষে ব্যবসাটাই খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।’

নকীব বলেন, ‘তাদের আসল উদ্দেশ্য কিন্তু এটাই। এসব ব্যবসায়ীরা হিট পেতেই সালমান শাহ্ নাম ব্যবহার করে। কিন্তু কালজয়ী এই অভিনেতার মৃত্যুর ২৬ বছর শেষ হওয়ার দ্বারপ্রান্তে এসেও তাকে নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক মানের ডকুমেন্টারি নির্মাণ করতে পারে না। শুধু ভালো পারে সালমান শাহ্ নাম নিজেদের প্রয়োজনে ব্যবহার করতে।’


মন্তব্য করুন

Shares