Select Page

রিফিউজি: বিহারি ক্যাম্পের দীর্ঘশ্বাস ঘিরে থ্রিলার

রিফিউজি: বিহারি ক্যাম্পের দীর্ঘশ্বাস ঘিরে থ্রিলার

জিন্দেগী ভার হাম এইসে জিয়ে, এইসে জিয়ে!

রিফিউজি’ নিয়ে এক বাক্যে বলতে গেলে এই হতাশা ও ক্ষোভের কথাটির প্রতিফলন বলা চলে। ‘ওয়াসিম’ চরিত্রটির এই আর্তচিৎকার শুধু একটি প্রশ্ন না, একটি স্টেটমেন্টও যার উত্তর লাখো বিহারি আজও খুঁজে ফিরছে চাতকের মতো। দেখেও না দেখার মত রাজধানী ঢাকার বুকে যে তথাকথিত ‘আটকে পড়া পাকিস্তানি’রা আছে, তাদের বুক ভাঙা দীর্ঘশ্বাস যেন হাওয়া হয়ে মিলিয়ে যায় ওইটুকু ক্যাম্পের ভেতরেই।

ওয়াসিম ছাড়াও ‘রিফিউজি’র গল্পে আরও তিনজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি আছে। ইকবাল, খুনের ঝামেলায় জড়িয়ে জেলহাজতে আটকে থাকা ছোট ভাইকে ছাড়াতে মরিয়া এক বিহারি যুবক। মারিয়া, ব্যক্তিগত ব্যথা বেদনার অতীত সঙ্গে করে এগিয়ে চলা এক সাহসী ইন্টেলিজেন্স অফিসার। ‘কার্বন’, আসল নাম না তবে সে এই সিরিজের এক্স ফ্যাক্টর সে। বিহারিদের দোদুল্যমান জীবন আর পুলিশের তৎপরতায় এই ওয়ান্টেড কোড নেম ‘কার্বন’ এসে বিভক্ত করে দেয় বন্ধু ইকবাল আর ওয়াসিমের মাঝে। ওয়াসিমের মনেও আছে অসন্তোষ, যার বাবা আজীবন চান পাকিস্তানে তার কবর হোক। গল্প এগিয়ে যায় মারিয়ার ইনফর্মার হিসাবে ইকবালের মাধ্যমে বিহারি ক্যাম্পের তথ্য পাচার আর ওয়াসিম ইকবালের দ্বন্দ্বের জেরে অঘটন নিয়ে। পারিপার্শ্বে জড়িয়ে থাকা স্বাধীনতার পক্ষের মুক্তিযোদ্ধা আর কার্বনের পক্ষের ক্রিমিনালও আছে গল্পের ইট-পাথর হয়ে।

‘রিফিউজি’র সবচেয়ে বড় পজিটিভ দিক, যে থিমের ওপর গল্পের ভিত তার সাহসিক রূপায়ন। গল্পটির সময়কাল দেখানো হচ্ছে স্বাধীনতার ৩৬ বছর পার হবার পর। আজ এই সময়ে দাঁড়িয়েও মিরপুর, মোহাম্মদপুরসহ কিছু জায়গায় একচ্ছত্র হয়ে বাস করা মানুষগুলোর কথা তাদের মুখ থেকে শোনা যায়নি। এই সিরিজে উর্দু-হিন্দি মিশ্রণে কথা বলা মানুষের আওয়াজ, আর্তনাদ, চাহিদা, অভাব আর ভয়ংকর রূপ সব দেখানো হয়েছে খোলাখুলিভাবে।

তারপর অবশ্যই সিরিজের পারফরমেন্স অফ এক্ট! সোহেল মণ্ডলকে দেখে মনে হয়েছে নিজের মাঠে সমানে ছক্কা পেটাচ্ছেন। ভাষার দ্রুততা ঠিক রেখে আর দশটা বিহারি যুবকের মত ইকবাল চরিত্রে তাকে দেখা গেছে পুরোটা জুড়ে। তার যোগ্য সহযোগী ওয়াসিম চরিত্রে শরীফ সিরাজ ছিলেন দুর্দান্ত। কে ভেবেছিল ‘জ্যাকসন ভাই’ এখানেও মিশে যাবেন চরিত্রে। নির্মাতা মূলত এই দুই চরিত্রে বিহারিদের অবস্থানের দুটো উল্টো পিঠ দেখিয়েছেন। একজন যখন চায় অধিকার আদায় করে বাঙালিদের সাথে মিশে যেতে, সেখানে অন্যজন চায় ফিরে যেতে পাকিস্তানে। মারিয়া চরিত্রে অনেকদিন পর জাকিয়া বারী মম’কে পেলাম একটা রাফ অ্যান্ড টাফ চরিত্রে। সাহস, এঙ্গার আর ইমোশনের দারুণ মিক্স আপ যেন তিনি। তবে হতাশ হয়েছি আফজাল হোসেনের অসম্পূর্ণ ও অপ্রাপ্তিতে মোড়া ‘কার্বন’ চরিত্রে। তার আসা-যাওয়া আর গল্পে চরম প্রভাব থাকলেও ছিল না যথাযথ বিল্ড আপ। দ্বিতীয় সিজনে সেটার ইঙ্গিত থাকছে শুধু। এছাড়া বেশ ভালো করেছেন শাহেদ আলী, ঝুনা চৌধুরী, মনির খান শিমুল সবাই।

এই সিরিজে ভাষার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করতে একজন ট্রেইনার রাখা হয়েছিল, যিনি ডাবিং পর্যন্ত ছিলেন উর্দু-হিন্দি মিক্স বিহারিদের কথ্য ভাষার তদারকিতে। সিরিজ শো রানারদের একজনের নাম যেখানে আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ, সেখানে চাহিদা একটু বেশি থাকেই। গল্পে আহামরি কোন থ্রিল বা অনাকাঙ্ক্ষিত দৃশ্য নেই আবার নেই কোন অভাবনীয় চমকও। তবে চিত্রায়ন আর সেট দেখে যে ভাবনার সৃষ্টি তা আপনাকেও নিয়ে যেতে পারে বিহারিদের সেই ঘিঞ্জি পট্টিতে।

সিরিজে গল্পের আবহে উঠে এসেছে মারাত্মক কিছু ইস্যু। বিহারিদের মাঝে এখনো পাকিস্তান প্রীতি, বাঙালিদের অবহেলা, নাগরিকত্ব নিয়ে জটিলতা, জেলের ভেতর কয়েদিদের যৌন নির্যাতন আর যুদ্ধাপরাধীদের পরের জেনারেশনের কালো দিক খুব ভালোভাবে দেখানো হয়েছে ‘রিফিউজি’তে।

সব মিলিয়ে ইমতিয়াজ হোসেন সজীবের দারুণ নির্মাণ বলা যায় ‘রিফিউজি’কে। অল্প জায়গা আর প্রতিকূল সেটের মাঝে সুন্দর চিত্রায়ন করে তুহিন তমিজুল প্রশংসার দাবিদার। সাদের ‘রেহানা মরিয়ম নুর’-এর কালার টোনের সঙ্গে সাদৃশ্য অনেক দৃশ্যকে করেছে আরো দুর্দান্ত! মাত্র ১২৫ মিনিটে সত্যিকার অর্থে কম হয়েছে অনেক কথা বলার। তাই বাকি কথা জানতে অপেক্ষা থাকবে আরেক সিজনের।


লেখক সম্পর্কে বিস্তারিত

Graduated from Mawlana Bhashani Science & Technology University. Film maker and writer.

আমাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

BMDb ebook 2017

Shares