Select Page

সর্বাধিক অর্জন ‘ঘেটুপুত্র কমলা’র

সর্বাধিক অর্জন ‘ঘেটুপুত্র কমলা’র

Ghetuputro-komola-B-217x275বৃহস্পতিবার এক প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে ২০১২ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করেছে সরকার। এই পুরস্কারে সর্বাধিক অর্জন ঘটেছে ‘ঘেটুপুত্র কমলা’ ছবির।

এ চলচ্চিত্রটির জন্য সেরা পরিচালক নির্বাচিত হয়েছেন প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। পাশাপাশি একই চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ চিত্রনাট্যকারের পুরস্কারটিও তিনি পাচ্ছেন। এছাড়া ২০১২ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে এ ছবিটির জন্য শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী মামুন, শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক ইমন সাহা, শ্রেষ্ঠ চিত্রগ্রাহক মাহফুজুর রহমান খান, শ্রেষ্ঠ সম্পাদক ছলিম উল্লাহ ছলি, শ্রেষ্ঠ মেকাপম্যান খলিলুর রহমান এবং শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজসজ্জা মাঈনুদ্দিন ফুয়াদ পুরস্কার পাচ্ছেন ।

এদিকে ২০১২ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ‘খোদার পরে মা’ চলচ্চিত্রের জন্য সেরা অভিনেতা শাকিব খান এবং ‘চোরাবালি’ চলচ্চিত্রের জন্য সেরা অভিনেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন জয়া আহসান। আর সেরা চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়েছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত এবং শাহনেওয়াজ কাকলী পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘উত্তরের সুর’। আজীবন সম্মাননা পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন অভিনেতা খলিল উল্লাহ খান।

এছাড়াও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের জন্য অন্য যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন পার্শ্ব চরিত্রে সেরা অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান (চোরাবালি), পার্শ্ব চরিত্রে সেরা অভিনেত্রী লুসি তৃপ্তি গোমেজ (উত্তরের সুর), শিশুশিল্পী ক্যাটিগরিতে বিশেষ পুরস্কার মেঘলা (উত্তরের সুর), শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার শাহনেওয়াজ কাকলী (উত্তরের সুর), শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা রেদওয়ান রনি (চোরাবালি), শ্রেষ্ঠ সুরকার ইমন সাহা (পিতা), শ্রেষ্ঠ গীতিকার মিল্টন খন্দকার (খোদার পরে মা), শ্রেষ্ঠ গায়ক পলাশ (খোদার পরে মা), শ্রেষ্ঠ গায়িকা রুনা লায়লা (তুমি আসবে বলে), শ্রেষ্ঠ শব্দগ্রাহক রিপন নাথ ( চোরাবালি) এবং শ্রেষ্ঠ শিল্পনির্দেশক কলমতর ও উত্তম গুহ (রাজা সূর্য খাঁ)।


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

BMDb ebook 2017

Coming Soon
২০২০ সালে বাংলা চলচ্চিত্রের অবস্থা কেমন হবে?
২০২০ সালে বাংলা চলচ্চিত্রের অবস্থা কেমন হবে?
২০২০ সালে বাংলা চলচ্চিত্রের অবস্থা কেমন হবে?

[wordpress_social_login]

Shares