Select Page

আমি নেতা হবো : আমি জগাখিচুড়ি খেলাম!

আমি নেতা হবো : আমি জগাখিচুড়ি খেলাম!

আমি নেতা হবো
ধরণ : সোশ্যাল অ্যাকশন ড্রামা
পরিচালক : উত্তম আকাশ
অভিনয় : শাকিব খান (সাক্কু), বিদ্যা সিনহা সাহা মিম (সুন্দরী), ওমর সানী (সাক্কুর দুলাভাই), মৌসুমী (সাক্কুর বোন), কাজী হায়াৎ (সাক্কুর বাবা), সাদেক বাচ্চু (আক্কাস বেপারী), শিবা শানু (আক্কাস আলীর ভাই), ডি জে সোহেল (ডি জে), কাবিলা (কাবিলা) প্রমুখ।

নামকরণ : বংশপরম্পরায় ক্ষমতায় থাকা বেপারী বংশের শোষণ-নিপীড়ন থেকে সমাজকে রক্ষা করার জন্য সাক্কু ঠিক করে সে তার বাবার স্থলাভিষিক্ত হয়ে নির্বাচন করবে। বস্তুত, সাক্কুসহ তার পরিবারের সবাই রাজনীতির সাথে যুক্ত, তাই সাক্কুর জন্য নতুন করে নেতা হবার কোনো প্রয়োজন হয়নি। তাই ছবির নাম একবারেই যথার্থ নয়; বরং ‘আমি নির্বাচনে দাঁড়াবো’ এ টাইপ নাম রাখলেও মেনে নেওয়া যেতো।

কাচিস (কাহিনী+চিত্রনাট্য+সংলাপ) : এ ছবির কাহিনী একাধিক বাংলা-হিন্দিসহ বিভিন্ন ছবির ককটেল। তাছাড়া বলে রাখা ভালো, গল্পটি মোটেও পলিটিক্যাল টাইপ হয়নি। কারণ, শুধুমাত্র দুটো ইলেকশন দেখালেই রাজনৈতিক ছবি হয় না। আর সাথে রয়েছে জগাখিচুড়ি টাইপ চিত্রনাট্য। এটা সম্পর্কে বেশিকিছু বলতে চাই না, উনি যিনি চিত্রনাট্যটি সাজিয়েছেন উনি আসলেই অস্কার পাওয়ার যোগ্য(!) তবে সংলাপ মোটামুটি হলেও তা হাততালি/শীষ কিংবা মনে ধরার মতো কোনো সংলাপ খুঁজে পাইনি।

এ অংশ পাবে ১০০ তে ১৫।

টিমওয়ার্ক : শাকিব খান এ ছবির প্রাণ। পুরো ছবির গল্প শাকিব খান নিজে টেনে নিয়ে গেছেন। তার রাফ অ্যান্ড টাফ লুক দর্শকদের অনেক ভালো লাগবে। তবে এ ছবিতে তাকে বেশ মেদবহুল লেগেছে। তার ফিটনেসের দিকে নজর দেওয়া উচিত। আর তার এই গল্প না দেখে ছবি সাইন করার অভ্যাসটা ত্যাগ করতে হবে।

মিমের ‘সুন্দরী’ ক্যারেক্টারটি একদম অবহেলিত। ছবিটি তার করাই উচিত হয়নি। অভিনয় দেখানোর মতো কিছুই ছিল না এ চরিত্রে।

ওমর সানীর অ্যাকটিং বড়ই হতাশ করেছে। তার কাছে অনেক বেটার কিছু আশা করেছিলাম। সাথে উত্তম কাক্কুর ম্যাজিক (!) তো সানী ভাইকে পুরা সুপারম্যান বানায় দিলো (শেষ ফাইটে শাকিব গুলি করে যখন ওমর সানীর হাতে বাধা দড়ি ছিড়ে ফেলে)। সে তুলনায় মৌসুমীর অভিনয় নজর কেড়েছে। দুঃখ-কষ্টের সিনগুলোতে তিনি বেশ সাবলীল অভিনয় করেছেন।

সাদেক বাচ্চু হলেন এছবির প্রধান খলনায়ক। উনি আর ডি জে সোহেল বেশ ভালোই করেছেন; একদম হতাশ করেননি। ডি জে সোহেল ইংরেজি বলাটা অনেকেই ভালোভাবে গ্রহণ করে না। আসলে বাণিজ্যিক ধারার ছবিগুলো তে কিছু ফিক্সড অভিনেতা সব ইন্ডাস্ট্রিতেই থাকে যারা সব ছবিতে একটি নির্দিষ্ট রোল প্লে করে। ডি জে সোহেলও এমনি একজন, যাকে কমেডি ভিলেন হিসেবে দেখা যায়।

ছবির ৩নং ভিলেন শিবা শানুর অভিনয়ে অনেক দূর্বলতা ছিল। এছাড়া অন্যান্য যারা সাপোর্টিং কাস্টে আছেন তারা তেমন কেউই আহামরি কিছু দেখাতে পারেনি।

এ অংশ পাবে ১০০ তে ৫০।

 কারিগরি : ছবিতে গান রয়েছে মোট ৫ টি। এর মধ্যে ‌লাল লিপস্টিক, চুম্মা এবং আই অ্যাম ইন লাভ গানগুলোর কোরিওগ্রাফি করেছেন ভারতের বাবা যাদব। স্বাভাবিকভাবেই গান ও ছবির মানে আকাশ-পাতাল তফাৎ। অন্য দুটি গানের মধ্যে ‌‌‘ঘুরেছি আজ পথে পথে’ও বেশ ভালোই হয়েছে; তাতে আমার কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা হলো ‘আমি নেতা হবো’র টাইটেল ট্র্যাকটা নিয়ে।

সাধারণত ১ মিনিটের টিজার কিংবা ৩ মিনিটের ট্রেলারে ছবির খণ্ড খণ্ড অংশ দেখানো হয়। আর এবার উত্তম আকাশ আমাদের খণ্ড খণ্ড অংশ দিয়ে একটা ৪ মিনিটের গান করে দেখালেন(!!!) প্রশ্নটা হল, শাপলা মিডিয়া কি এই গানের শুটিং করতে মানা করেছিল? নাকি এটি শুট করার কোনো প্রয়োজন মনে করেননি?? মনে করেছিলেন ‘পূর্নদৈর্ঘ্য প্রেম কাহিনী ২’ কিংবা ‌‘সত্তা’র কাটপিস জুড়ে দিলেই আমার ৪ মিনিটের গান বানানো হয়ে যাবে, দর্শককে যা দিব তাই খাবে।

কালার গ্রেডিং মোটমুটি ছিল। বাট এডিটিং এবং গ্রাফিক্স জঘন্য! ক্যামেরার কাজ মোটেও সন্তুষ্ট করতে পারেনি। আর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক মনে হলো ইউটিউব থেকে ডাউনলোড করে টিউনিং করে জুড়ে দেওয়া হয়েছে…!

এ অংশ পাবে ১০০ তে ১০।

বিনোদন : ছবির গানগুলো অনেক বেশি সুন্দর এবং অলরেডি মানুষের মুখে মুখে। এছাড়া উপভোগ করার মতো কিছু কমেডি সিন আছে। শাকিব খান, সাদেক বাচ্চু, কাবিলা, ডি জে সোহেল কমেডি সিনগুলোয় বেশ ভালো অভিনয় করেছে।

ছবির ফাইট মহাজাগতিক টাইপেরর (!!)। ১০ মাইল দূরে সাক্কুর কোনো লোক মার খেলেও সাক্কু টের পেয়ে যায়, গিয়ে উদুম কেলানি দেয়। আর শেষ ফাইট সিনে তো ওমর সানীকে একদম সুপারম্যান বানিয়ে ছেড়েছে।

এ অংশ পাবে ১০০ তে ৫০।

ব্যক্তিগত : প্রায় ৬ মাস পর নাম্বার ১ সুপারস্টারের ছবি মুক্তি পেয়েছে। সবার মতো আমিও কিছু একটা পাবো-কিছু একটা পাবো এই আশায় ছিলাম। কিন্তু গত কোরবানির ঈদে মুক্তি পাওয়া ‘রংবাজ’ এবং ‘অহংকার’-এর মতো এ ছবিও হতাশ করলো।

রেটিং : ১/৫

ছবিটি কেন দেখবেন : এ ছবি শুধুমাত্র তাদের জন্য, যারা শাকিব খানের ছবি ছাড়া অন্য কোনো ছবি দেখে না; যারা শাকিব খানের সাথে অন্য কাউকে তুলনা করে না।

সবাই ভালো থাকবেন এবং ভালো বাংলা ছবি দেখবেন।


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

স্পটলাইট

Movies to watch in 2018
Coming Soon

[wordpress_social_login]

Shares