Select Page

কলকাতায় আব্দুল আজিজ ও জিৎ

কলকাতায় আব্দুল আজিজ ও জিৎ

abdul-aziz-jeet

জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্নধার আব্দুল আজিজ বর্তমানে বড় বড় কয়েকটি সিনেমা নিয়ে ব্যস্ত। ওই সিনেমায় সিনেমায় অভিনয় করছেন ঢাকা, কলকাতা, মুম্বাই, তামিল তারকা।

কলকাতায় চলছে দুই সিনেমার শুটিং। শাকিব খান অভিনীত ‘শিকারী’ ও জিৎ অভিনীত ‘বাদশা’। ৩১ মার্চ আজিজ দুই সিনেমার শুটিংয়ের অগ্রগতি দেখতে কলকাতায় যান। এ নিয়ে জাজ মাল্টিমিডিয়ার ফেসবুক পাতায় দুটি বড় স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছে। ওই লেখায় ধরন ও সাথে দেওয়া ছবি থেকে বোঝা যায় এটি আজিজের নিজের অভিজ্ঞতা। আসুন জানা যাক জিতের সঙ্গে তার অভিজ্ঞতার কথা—৩১ মার্চ লিখেছেন, ‘সকাল ৯টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারে কলকাতা যাওয়ার কথা। বিমান ১ ঘণ্টা দেরি করে ছাড়ল। আমি আর অভিনেতা নাদের চৌধুরী যাচ্ছি কলকাতাতে। আমি যাচ্ছি বাদশা ও শিকারী শুটিংয়ে এবং শিকারী সিনেমার প্রথম লটের এডিট দেখতে। সাথে এসকের সাথে পরবর্তী প্রজেক্ট নিয়ে আলাপ করতে। আর নাদের চৌধুরী যাচ্ছেন উনার বাদশা সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নিতে।

ভারত সময় সকাল ১০.২০ এ বিমান কলকাতার দমদম বিমানবন্দরে পৌছাল। ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস শেষ করে সকাল ১১টায় বের হয়ে গাড়ি নিয়ে সোজা চলে গেলাম বাদশার শুটিং লোকেশনে। গিয়ে দেখি এলাহি কাণ্ড। বিশাল এক কাঠের ফ্যাক্টরিতে সেট ফেলানো হয়েছে, ৩০০ জন কাজ করছে, ২০টা ভ্যান, ৪টা মেকআপ ভ্যান, প্রচুর বাংলাদেশী ও ভারতীয় শিল্পী। এক মেকাপভ্যানে ঢুকে দেখি সুষমা, আহামেদ শরীফ ও এক শিশু শিল্পী বসে আছে। উনাদের সাথে কুশলাদি বিনিময় করে আরেক মেকাপ ভ্যানে ঢুকে দেখি পূজা, রেবেকা ভাবি সাথে পূজার মা- আড্ডা দিচ্ছে। উনাদের সাথে কুশলাদি বিনিময় করে গেলাম পাশের মেকাপভ্যানে, দেখি ফারিয়া ও তার মা বসে আছে, সবসময়ের মত রুমে ঢুকতেই ফারিয়া কাছু বাদাম খেতে দিল। আবার উনাদের সাথে কুশলাদি বিনিময় করে বের হয়ে দেখি জিৎ আমার সাথে দেখা করার জন্য অপেক্ষা করছে, অতান্ত সমাদরে, তার ভ্যানে নিয়ে গ্রীন টি দিল। চলল জস্পেশ আড্ডা, তার ঢাকার শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা, ঢাকা তার খুব ভালো লেগেছে জানালো, শুটিং করে খুব আনন্দ পেয়েছে, আর ঢাকার লোকের আতিথিপরায়ণতা, সব বলল।

ঢাকা এসে জিৎ একটা দৃশ্য করেছে, ট্রেনের ছাদে উঠে সে দৌড়াবে, এক বগি থেকে আরেক বগি লাফ দিয়ে পার হবে- আর এই সব চলন্ত ট্রেনে। লাইভ দৃশ্য ধারণ করা হবে, কোন রকমের বাঁধা বা প্রোটেকশন ছাড়া। দৃশ্য তা খুব ভালোভাবে করেছে। আমি যখন ট্রেনের ছাদে ক্যামেরার পিছনে বসি, আমার ভয় লাগছিল। কারণ ট্রেনের দুই দিকে কোন প্রকার রেলিং নাই। কিন্তু জিৎ এই চলন্ত ট্রেনের ছাদে দৌড় লাফঝাঁপ করল। এবার কলকাতায় তাকে জিজ্ঞাস করলাম যে ট্রেনের ছাদে শুটিং করতে ভয় লাগে নাই, বলল প্রথমে ভয় লাগছিল, কিন্তু ভয় পেলে কি হবে? ভয় কে জয় করেই তো কাজ করতে হবে।

কিছুক্ষণ পর ডাক পরল, ফাইটের দৃশ্য হবে, ফাইট মাস্টার রেডি। জিতের শরীরে দড়ি বাধছে। দৃশ্যটা হল, জিত দৌড়ে এসে একটা চলন্ত গাড়িকে টপকে পিছনের গাড়িটাকে হিট করবে। খুব রিস্কি দৃশ্য, কারণ গাড়ি স্পিডে আসবে, জিতকে সময় মত লাফ দিতে হবে, যারা দড়ি কন্ট্রোল করছিল, তাদের যদি দড়ির টাইমিং ঠিক না থাকে তাহলে দুর্ঘটনা নির্ঘাত। যাই হোক, একবারেই দৃশ্যটি ঠিকমত হয়ে গেলো।

এই দৃশ্য শেষে সবার কাছথেকে বিদায় নিয়ে, এসকে এর অফিসে রওনা দিলাম। সেখানে আবার নতুন গল্প।’


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

BMDb ebook 2017

Coming Soon
বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের অভিনয়শিল্পী বাছাই কেমন হয়েছে?
বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের অভিনয়শিল্পী বাছাই কেমন হয়েছে?
বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের অভিনয়শিল্পী বাছাই কেমন হয়েছে?

[wordpress_social_login]

Shares