Select Page

ধর্ষণ নিয়ে হাস্যরস : ক্ষমা চাইলেন পূর্ণিমা

ধর্ষণ নিয়ে হাস্যরস : ক্ষমা চাইলেন পূর্ণিমা

চলচ্চিত্রে ধর্ষণ দৃশ্যে অভিনয় নিয়ে এক টিভি অনুষ্ঠানে পূর্ণিমামিশা সওদাগরের ‘হাস্য-রসাত্মক’ আলোচনা নিয়ে বইছে সমালোচনার ঝড়। এ নিয়ে মুখ খুললেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারজয়ী অভিনেত্রী। ক্ষমা চাইলেন তিনি।

ভাইরাল হয়েছে ১৭ মার্চ আরটিভিতে প্রচারিত ‘এবং পূর্ণিমা’ টকশোর ভিডিও। দিলারা হানিফ পূর্ণিমার উপস্থাপনায় এ অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন খলনায়ক মিশা সওদাগর।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে পূর্ণিমা হাসতে হাসতে সহ অভিনেতা মিশাকে প্রশ্ন করেন, তিনি চলচ্চিত্রে কতবার ধর্ষণ করেছেন? কোন নায়িকার সঙ্গে ধর্ষণের দৃশ্যে অভিনয় করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন? ইত্যাদি।

তাদের আলোচনা দেখে ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বিশেষ করে সাম্প্রতিক সময়ের কিছু ঘটনা যখন দেশবাসীকে মর্মাহত করেছে তখন এ ধরনের হাস্যরস ধর্ষণের বীভৎসতাকে প্রশ্রয় দেয় যেন।

এদিকে সমালোচনার মুখে ক্ষমা চান ‘মনের মাঝে তুমি’-খ্যাত নায়িকা পূর্ণিমা। তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ““আমি যদি কোনো ভুল বা অন্যায় করে থাকি বা কারও মনে আঘাত করে থাকি এই বিষয়টা তুলে এনে, আমি ক্ষমা চাচ্ছি। আমি কাউকে আঘাত করার জন্য, কাউকে নিচু করার জন্য বা বিষয়টি নিয়ে হাস্যকর কোনো কিছু করার জন্য কাজটা করিনি।”

আরো বলেন, “আমি যখনই এধরনের (ধর্ষণের) সংবাদ দেখি তখন আমার চোখ দিয়ে পানি আসে। আমি নিজেও একজন নারী। আমার সন্তান আছে। আমিও বাকিদের কথা চিন্তা করি।”

পূর্ণিমার সঙ্গে খানিকটা সহমত পোষণ করেছেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশাও।

তিনি বলেন, “প্রশ্নকর্তাকে এমন কোনো প্রশ্ন করা উচিৎ নয়, যেটা আমাদের সমাজে খারাপ প্রভাব ফেলে। প্রডিউসার কিংবা স্ক্রিপ্ট রাইটারকে অবশ্যই সচেতন হওয়া উচিৎ যাতে সমাজে খারাপ প্রভাব না ফেলে। কারণ আমাদেরকে মানুষ বেশি ফলো করে। সাধারণ মানুষ করলে এটা হত না… আমি মনে করি, সমাজে যাতে কোনো খারাপ প্রভাব না আসে সে ব্যাপারে প্রশ্নকর্তা ও প্রডিউসারদের সতর্ক হওয়া উচিৎ।”


মন্তব্য করুন

Shares