Select Page

বাংলাদেশে ‘পাঠান’, যা বললেন অনন্য মামুন

বাংলাদেশে ‘পাঠান’, যা বললেন অনন্য মামুন

আইনি জটিলতার কারণে শাহরুখ খান ও দীপিকা পাড়ুকোন অভিনীত ‘পাঠান’ বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে না- এমন খবরের জবাবে আমদানিকারক অনন্য মামুন বলছেন,অপেক্ষার ফল মিষ্টি হয়।

আজ (২৫ জানুয়ারি) বিশ্বের শতাধিক দেশে সাড়ে ৭ হাজারের বেশি প্রেক্ষাগৃহে একযোগে মুক্তি পাচ্ছে সিদ্ধার্থ আনন্দ পরিচালিত ‘পাঠান’। ক’দিন ধরে বাংলাদেশকেও সেই তালিকায় যুক্ত করার চেষ্টা করছে অ্যাকশন-কাট এন্টারটেইনমেন্ট।

সাফটা চুক্তির আওতায় এই ছবিটি বাংলাদেশেও একই সময়ে মুক্তি দেওয়া যাবে কিনা, মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সে বিষয়ে জরুরি বৈঠক হয় তথ্য মন্ত্রণালয়ে। যেখানে হাজির ছিলেন মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্তাসহ চলচ্চিত্রকার কাজী হায়াৎ, হল মালিক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের অ্যাডভাইজার সুদীপ্ত কুমার দাস প্রমুখ।

বৈঠক শেষে এটুকু নিশ্চিত হয়, ভারতের সঙ্গে একই দিনই তো নয়, খুব দ্রুত সময়ে ‘পাঠান’ বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে না। কারণ, আইনি জটিলতা।

বৈঠক প্রসঙ্গে হল মালিক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের অ্যাডভাইজার সুদীপ্ত কুমার দাস বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের আমদানি-রফতানি সংক্রান্ত কমিটির সদস্য এবং হল মালিকরা কয়েকজন বসেছিলাম। দুই পক্ষের যুক্তির বিষয়ে ‘পাঠান’ আনার পক্ষে আমরা বলেছি। বিপরীতে না আনা পক্ষেও যুক্তি দেওয়া হয়েছে। তবে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। যেহেতু এটা আমদানি-রফতানির বিষয়, তাই বাণিজ্য মন্ত্রণালয়েরও বিষয় আছে। তাই এ বিষয়ে সিদ্ধান্তের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। দেখা যাক কী সিদ্ধান্ত আসে।’

জানা গেছে, তথ্য মন্ত্রণালয় এই বিষয়টির ব্যাখ্যা চেয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি পাঠাবে দ্রুত। কারণ, সিনেমা আমদানি ও রফতানি আইন তৈরি করেছে মূলত বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

অনন্য মামুন

ছবি মুক্তির বিষয়ে এখন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আইনজীবীর মাধ্যমে বিচার–বিশ্লেষণ করে সিদ্ধান্ত দেবে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সাইফুল ইসলাম জানান দু-এক দিনের মধ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এ–সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হবে।

সিনেমা আমদানি-রপ্তানি কমিটির এক সদস্য ও পরিচালক সমিতির সভাপতি কাজী হায়াৎ প্রথম আলোকে বলেন, ‘নিয়ম মেনে “পাঠান” বাংলাদেশের হলে চলবে, এতে আমার কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু সিনেমার আদান–প্রদানের এই নীতিমালায় সমস্যা দেখা দিয়েছে।  নীতিমালার ৩৬–এর (ক) ও (খ)–এর ব্যাখ্যায় বলা হচ্ছে, উপমহাদেশের যেকোনো ভাষার সিনেমা আমদানি করা যাবে না। কিন্তু  (গ)–এর ব্যাখ্যায় আবার বলা হচ্ছে—বাংলাদেশে নির্মিত চলচ্চিত্র সাফটাভুক্ত দেশসমূহে রপ্তানির বিপরীতে সমানসংখ্যক চলচ্চিত্র তথ্য মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তি সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট দেশ হইতে আমদানি করা যাবে।

(গ)–এর ধারায় ‘পাঠান’ আমদানির জন্য আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু নীতিমালায় একই অনুচ্ছেদে দুই রকম ব্যাখ্যা দেখা যাচ্ছে। আমদানি-রপ্তানি নীতিমালা প্রণয়ন করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তাই তাদের কাছে এই ধারার সঠিক ব্যাখ্যা চাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে মিটিংয়ে।’

এ দিকে জানা গেছে ‘পাঠান’ আমদানির বিষয়ে মিটিং শুরু হলে কমিটির বেশ কয়েকজন নীতিমালার (ক) ও (খ) ধারা দেখিয়ে বিরোধিতা করেন।

‘পাঠান’ মুক্তি পাচ্ছে না এমন গুঞ্জনে ফেসবুকে অনন্য মামুন লেখেন, ‘সঠিক তথ্যটা জেনে নিন। আজেকর সভায় পাঠান বাংলাদেশের মুক্তি পাবে না এমন কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। বরং আমি মনে করি পাঠানের পক্ষে সিদ্ধান্ত আসবে, কারণ তথ্য মন্ত্রণালয় আমার আবেদন বাতিল না করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে আইনি ব্যাখা চেয়েছে। ধন্যবাদ জানাই পরিচালক সমিতির বর্তমান সভাপতি কাজী হায়াৎ সাহেবকে, কি সুন্দর ব্যাখা দিয়ে বুঝিয়ে দিলেন। আইনীর আইনের প্রতি সম্মান রেখে বলতে চাই পাঠান বাংলাদেশে মুক্তি পাবে।  যারা পাইরেসি দেখার অপেক্ষায় আছেন তাদেরকে অনুরোধ করব হলে বসে পাঠান দেখার জন্য অপেক্ষা করুন। অপেক্ষার ফল মিষ্টি হয়।’

‘পাঠান’ আমদানির আবেদনকর্তা পরিচালক অনন্য মামুন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বৈঠক খুব ফলপ্রসূ হয়েছে। তবে আইনি জটিলতার কারণে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি সংশ্লিষ্টরা। কারণ, বিদেশি ছবি আমদানি নীতিমালায় দুই ধরনের আইন রয়েছে। একটিতে বলা আছে উপমহাদেশের কোনও ছবি আমদানি করা যাবে না। আরেকটিতে রয়েছে দেশের ছবি বিনিময় করে বিদেশি ছবি আমদানি করা যাবে। মূলত এই বিষয়টি সুরাহার প্রক্রিয়া চলছে।’

গত বুধবার তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে ‘পাঠান’ আমদানি করার আবেদন করা হয়। তার আগে ২০১৯ সালে শাকিব খান অভিনীত ‘পাঙ্কু জামাই’ ছবিটি রপ্তানি করে রেখেছে ওই প্রযোজক। জানা গেছে মুম্বাইয়ের আন্তর্জাতিক একটি পরিবেশক সংস্থা ওয়ান ওয়ার্ল্ড মুভিজের মাধ্যমে বাংলাদেশে ‘পাঠান’ আমদানি হওয়ার কথা।


মন্তব্য করুন

Shares