Select Page

শান: ভীতুরা মরে বারবার সাহসীরা মরে একবার!

শান: ভীতুরা মরে বারবার সাহসীরা মরে একবার!

পত্রিকায় কিংবা টিভির সংবাদে অবৈধভাবে সাগরপাড়ি দিয়ে বিদেশ যাবার ঘটনা আমরা প্রায়ই দেখি। সাধারণত যারা বৈধভাবে যেতে পারে না,অর্থনৈতিকভাবে গরীব তারা কম টাকায় এই পথে পা বাড়ায়। কিন্তু সেই অসহায় মানুষগুলোর জীবনে সুখের বদলে নেমে আসে দূর্ভোগ।

কেউ দূর্গম পথেই মারা যায়, কেউ মারা যায় খাবারের অভাবে। যদিও বা বেঁচে থাকে, মানব পাচারকারীর খপ্পরে পড়ে হারায় ফুসফুস, কিডনি। এই পাচারচক্র বেশ সক্রিয়, তারা দেশ-বিদেশে বেশ শক্তিশালী প্রভাব রাখে, তাদের কেউই খুঁজে পায় না। এই মানব পাচারকারীদের ধরতে পুলিশের অভিযান নিয়েই সিনেমা ‘শান’।

গল্পের নায়ক শানের নামেই ছবি, তার নামের অর্থ যেমন ধারালো, তেমনি সে চৌকস পুলিশ অফিসার। পুলিশ বিভাগে বেশ সুনাম আছে তার। তার মা আছে, প্রেমিকা আছে। তবে গল্পের মোড়ে তাকে নেমে যেতে হয় মানব পাচারকারীদের চক্র ধরার অভিযানে। দলবল নিয়ে বেরিয়ে পড়ে, ছদ্মবেশ নেয়। এরপর এগিয়ে যায় কাহিনি।

এই ছবির মূল সম্পদ হচ্ছে গল্প। বিশেষ করে ঢাকার সিনেমার জন্য এই ধরনের গল্প আগে কেউ বেছে নেয়নি; পাশাপাশি শুরু থেকেই ছবি এই বিষয়বস্তুকে নিয়েই এগিয়ে গেছে। অন্যদিকে মনোযোগ দেয়নি, গল্পের ধারাবাহিকতায় রোমান্স এসেছে, সেটা সামান্যই।

অভিনয়ের কথা বললে সিয়াম আহমেদ চরিত্রকে ধারণ করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছেন, তার জন্য সাধুবাদ পাবেন। সিয়ামের সার্বক্ষণিক সঙ্গী ফরমান আলীর চরিত্রে অভিনয় করা নূরে আলম নয়ন অনেকটাই আলো কেড়েছেন, উনার কারণে সিনেমা আরো জমে উঠেছিল। নাদের চৌধুরী যতক্ষন পর্দায় ছিলেন, ভালো লেগেছে।

পরিচালক এম রাহিমের সঙ্গে চিত্রনাট্য সাজিয়েছেন নাজিম উদ দৌলা। আজাদ খানের গল্পে চিত্রনাট্য খুব মজবুত হয়েছে বলব না, তবে দ্বিতীয়ার্ধ বেশ জমে উঠেছিল,উপভোগ্য ছিল। নবীন পরিচালক হিসেবে এম রাহিম উত্তীর্ণ। গানগুলো ভালো। মানব পাচারের দৃশ্যগুলো বেশ বাস্তবিক।

দূর্বলতার কথা বললে পার্শ্ব চরিত্রগুলো ভালোভাবে ফুটে না উঠা। চম্পা, অরুণা বিশ্বাস, মিশা সওদাগর, আরমান পারভেজ মুরাদের মত নামী তারকাদের সেভাবে পাওয়া যায়নি। নায়ক কেন্দ্রিক অ্যাকশন ধারার ছবিতে নায়িকার গুরুত্ব কম থাকবে স্বাভাবিক, কিন্তু নায়িকার নাম যখন পূজা চেরি তখন প্রত্যাশা থাকে বেশি, সেই তুলনায় হতাশ হয়েছি। তবে শেষাংশে সিয়ামের সঙ্গে তার উপস্থিতি মনে জায়গা করে নিয়েছে। তাসকিন আহমেদ ভালো করেছেন বলা যায়, কিন্তু তাকে ঘিরে যে আকর্ষণ রাখতে চেয়েছেন গল্পকার, সেটা জমেনি। তৃতীয় গানটার অপব্যবহার হয়েছে। প্রথমাংশের চিত্রনাট্য আরো ভালো দাবী করে, যদিও দ্বিতীয়ার্ধ সেটা পুষিয়ে দিয়েছে।

‘থেমে যাওয়া মানেই শেষ নয়’ সিনেমার শেষপ্রান্তে সিয়ামকে উদ্দেশ্য করে মিশা সওদাগরের মুখে এই সংলাপ টা খুব ভালো লেগেছে। ‘শান’ টিমের যে সর্বাত্মক চেষ্টা, সেটা যেন শেষ না হয়, আরো প্রস্তুতি নিয়ে পরবর্তী সিনেমাগুলো দর্শকদের সামনে নিয়ে আসবেন। এই প্রত্যাশা।


লেখক সম্পর্কে বিস্তারিত

চলচ্চিত্র ও নাটক বিষয়ক লেখক

আমাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

BMDb ebook 2017

Shares