Select Page

অশ্লীল যুগ : এড়িয়ে যাওয়া যাবে, অস্বীকার করা যাবে না

অশ্লীল যুগ : এড়িয়ে যাওয়া যাবে, অস্বীকার করা যাবে না

অশ্লীল বাংলা সিনেমা পোস্টার

এক.

চলচ্চিত্র নির্মাণ শুরু হয় ১৮৯০ এর দিকে। ওই সময়ে আমাদের ভূখণ্ডে চলচ্চিত্র নির্মিত না হলেও বেশ কয়েকটা প্রদর্শনী হয়েছিল। এই অঞ্চলে ১৯০০-এর দশকে নির্বাক এবং ১৯৫০-এর দশকে সবাক চলচ্চিত্র নির্মাণ ও প্রদর্শন শুরু হয়।

৪০ ও ৫০ এর দশকে তৎকালীন ব্রিটিশ ইন্ডিয়া ও পূর্ব পাকিস্তানে নামে-ছদ্মনামে অনেকে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন তবে সেগুলো ঐতিহাসিকভাবে আলোচ্য নয়। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাস শুরু ১৯৫৬ সালে, মুখ ও মুখোশ ছবিটির মাধ্যমে। পরিচালনা করেন আবদুল জব্বার খান। ছবিতে তিনি নিজেই প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন। এটাই পূর্ব পাকিস্তানের প্রথম সবাক বাংলা পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। সেসময় এখানে কিছু উর্দু চলচ্চিত্রও নির্মাণ হয়েছিল।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসে মুখ ও মুখোশ-এর পরেই আলোচনা হয় একজন ব্যক্তিকে নিয়ে। তিনি জহির রায়হান। ৬০ এর দশক জুড়ে অসাধারণ সব সিনেমা বানালেন জহির রায়হান। তারপর সেই কাঙ্ক্ষিত মুহূর্ত। ১৯৭১ সাল। শুরু হলো স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম, মুক্তির জন্য সংগ্রাম। ১৯৭১ সালে আমরা স্বাধীনতা পেলাম তবে আরো অনেকের মতো জহির রায়হানকে হারালাম। বাংলা চলচ্চিত্র খানিকটা হোঁচট খেল।

পরের দশকে হাল ধরলেন পরিচালক আলমগীর কবির। আন্তর্জাতিক মানের চলচ্চিত্র নির্মাণে পরিচিত হলো বাংলাদেশ। এদিকে এফডিসি কেন্দ্রিক চলচ্চিত্র ধীরে ধীরে দানব আকৃতি ধারণ করতে থাকল। জমে উঠল ফিল্ম ব্যবসা।

আশির দশকে আমজাদ হোসেন, চাষী নজরুল ইসলামের সিনেমা দর্শন জানতে পারল দর্শক। বছরে ৫০ এর অধিক সিনেমা মুক্তি পেতে থাকল। শিল্পী-পরিচালক-কলা-কুশলী-গুজব-ম্যাগাজিন মিলে সে এক জমজমাট অবস্থা।

নব্বই দশক গণতন্ত্রের দশক। মানুষের জীবনে এলো গতি। প্রযুক্তি ও অন্যান্য ক্ষেত্রে দারুণ সব আবিস্কার এলো। মানুষ ব্যস্ত হয়ে গেল আগের থেকে, পরিশ্রমী হয়ে গেল আরো বেশি। প্রয়োজন দেখা দিল মন ভুলানো বিনোদনের, দরকার দেখা দিল আত্ম-পরিচয় অনুসন্ধানের, প্রয়োজন হলো চেতনার। ততদিনে বাংলাদেশের এস্টাবলিশ হয়ে গেছে ব্যান্ড কালচার। আমরা পেলাম কাজী হায়াৎ, শহীদুল ইসলাম খোকন ও তার একটু পরে আন্তর্জাতিক সম্মান এনে দিলেন তারেক মাসুদ।

নব্বইয়ের দশক বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগ। ১০০-এর কাছাকাছি প্রতি বছর সিনেমা রিলিজ দেওয়ার ইতিহাস রচিত হয়েছিল এই দশকে। স্টার আগে থেকেই ছিল, তবে এই দশকে পাওয়া গেল বাংলাদেশের সব থেকে বড় সুপারস্টার শালমান শাহ-কে। পুরো দশক জুড়ে চলল চোখ ধাঁধানো সব ছবির মেলা। কোটি কোটি টাকার ব্যবসা হতে থাকল সিনেমাকে কেন্দ্র করে।

তারপর একদিন মারা গেলেন শালমান শাহ। গতি থমকে গেল বাংলা চলচ্চিত্রের। নতুন শতাব্দীতেই প্রবেশ করেই কচ্ছপের মতো উল্টে গেল বাংলাদেশের চলচ্চিত্র। যেন একটা গ্রিক ট্র্যাজেডি। এলো অন্ধকার যুগ— সে যুগ অসামাজিক, গোপন, একান্ত ব্যক্তিগত ও ইচ্ছাকৃতভাবেই তা ছিল অশ্লীল। এবং যার সুতো কাটা হয়েছিল বাংলা চলচ্চিত্রের গোল্ডেন এইজ নব্বই দশকে।

দুই.

নব্বই দশকের মাঝামাঝি ভিসিআর-এ ছেয়ে যায় শহর এবং সিডি-ডিভিডি জনপ্রিয় হতে থাকে। ক্যাবল নেটওয়ার্কের দৌড় বাড়ে, ফলে মানুষ দেশ-বিদেশের চলচ্চিত্র দেখতে শুরু করে। আগে সিনেমা হল ছাড়া সিনেমা দেখার উপায় ছিল না। বিটিভি কয়েকটি ছবি ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখাত। মহিলারা মুগ্ধ ও মগ্ন হয়ে টেলিভিশন দেখতেন।

সিনেমা ছাড়াও বিনোদনের অন্য মাধ্যম আসাতে দর্শক অর্ধেক হয়ে যায়। ব্যবসা ধরে রাখার জন্য বেপরোয়া হয়ে ওঠে প্রোডাকশন হাউসগুলো। তারা অশ্লীলতাকে আশ্রয় করে। একটা উদাহরণ মোহাম্মদ হোসেন পরিচালিত রাঙা বউ (আমিন খান, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, হুমায়ূন ফরীদি)।

সিডি-ডিভিডির আগমনে ব্যবসা কমে যাওয়া শুধু বাংলাদেশের সমস্যা না। প্রায় সারা পৃথিবীতে এই সমস্যা দেখা দিল। তখন আমেরিকায় ডিরেক্ট-টু-ভিডিও নামের একরকমের সিনেমা হলো। যেগুলো ছিল স্বল্প বাজেটের এবং এগুলো সিনেমা হলে বা স্যাটেলাইটে দেখানো হতো না। এগুলো সরাসরি সিডি-ডিভিডিতে রিলিজ করত। সেই মুভিগুলোর ফর্মুলা নিয়ে মূলত অশ্লীল যুগের প্রতিটা সিনেমা ডিজাইন করা হতো। আমেরিকা, গোটা ইউরোপ, চায়না, জাপান, হংকং, ইন্ডিয়া, বাংলাদেশ এরকম সিনেমাই হতো। তবে তারা দর্শকদের হলে ধরে রাখার কৌশল আবিস্কার করতে পারলেও আমরা পারিনি। পরবর্তীতে প্রতিটা ইন্ডাস্ট্রি ঐ অবস্থান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়েছে এবং আমরাও।

তিন.

২০০০ সালের পর থেকেই অশ্লীলতার স্বর্ণযুগ শুরু হলো। সেসময় প্রতিবছর ৮০-র বেশি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। সুশীল সমাজ ও নাগরিকরা টেলিভিশনমুখী হয়ে গেলেন এবং বিদেশি চলচ্চিত্রে বেশি আকৃষ্ট হলেন। বাংলা ছবির দর্শক থাকল মূলত গ্রাম আর মফস্বলে। সাধারণত অশিক্ষিত তরুণরা এবং যুবকরা।

এরই মধ্যে নায়িকা মুনমুন ও ময়ূরীর পরিচিতি বেড়েছে। জনপ্রিয় চলচ্চিত্র ম্যাডাম ফুলি-খ্যাত নায়ক আলেকজেন্ডার বো খানিকটা নাম পরিবর্তন করে লিডে চলে আসলেন। মান্না তো আগে থেকেই ছিলেন। রুবেলের উপস্থিতিও ছিল দেখার মতো। রিয়াজ-ফেরদৌসের উপস্থিতি খানিকটা কমে গেল। তবে হঠাৎ হঠাৎ দেখাও যেত। অমিত হাসান প্রধান সারিতে ঢুকে গেলেন। নায়িকাদের মধ্যে আসলেন পলি, মনিকা। এরা মূলত গল্পের ব্যাকআপ হিসেবে থাকতেন। ওদিকে ছবির যাবতীয় অশ্লীল কাজ-কারবার করত সাইড নায়ক-নায়িকারা। ডন, মেহেদি, সোহেল, আসিফ ইকবাল, আবরাজ খান, শিখা, ঝর্ণা, শাপলা, শায়লা ও নাম জানা-অজানা অনেকে।

নব্বই দশকের নায়করা অশ্লীল যুগে উপস্থিত থাকলেও নায়িকাদের উপস্থিতি অনেক কমে যায়। পুর্ণিমা ও শাবনূর মান্নার সাথে কিছু ছবি করেন এবং ছবিগুলো বেশ সংযত ছিল। রুবেল ও মান্নার সাথে জুটি বেঁধে কিছু ছবিতে অভিনয় করেন পপি। নব্বই দশকের নিয়মিত ও পরিচিত মুখ নাসরিন ছিল অশ্লীল যুগের কি-রোলে। প্রায় সকল মুভিতেই তার উপস্থিতি থাকত এবং অশ্লীল দৃশ্যেও সে ছিল পেশাদার।

শুরুর দিকে শাকিব খান সাইড রোলে থাকতেন। মান্না ও আলেকজেন্ডারের নিচে। পরে সেখান থেকে শাকিবকে কেন্দ্র করেই কিছু সিনেমা হয়। আর শাকিব অভিনীত এই সিনেমাগুলো ছিল অশ্লীল যুগের মূলধারা থেকে কিছুটা ভিন্ন।

এই লেখাটি বিএমডিবি ঈদ সংখ্যা ই-বুক ২০১৭ এর অংশ। পুরো ই-বুক টি ডাউনলোড করুন এখানে

ডাউনলোড করুন

 

চার.

অশ্লীল যুগে নানা রকমের সিনেমা হয়েছে। ১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৩ পর্যন্ত পুরোদমে এবং তারপর থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত বিরতি দিয়ে চলল। ছবি মুক্তির পরিমাণ কমে গেল। অশ্লীল যুগের এই তপ্ত হাওয়া থেকে বছরে সর্বোচ্চ ১০টা ছবি গা বাচাতে পেরেছে। বাকি প্রায় সব ছবিই এই জ্বরে আক্রান্ত। ১৯৯৭-২০০৭ পর্যন্ত কমপক্ষে ৫০০ চলচ্চিত্র হয়েছে। সব প্রডাকশনই এ ধরনের কম-বেশি সিনেমা নির্মাণ করেছে। তবে বিতরণের দিক থেকে লাভা ভিডিও ছিল উল্লেখযোগ্য। লাভা ভিডিও মুলত অশ্লীল যুগকে দিক নির্দেশনা দিয়েছে।

অশ্লীল বাংলা সিনেমা পোস্টার বিএমডিবি

এ যুগের অধিকাংশ ছবিই মানের দিক থেকে খুবই নিম্ন। প্রায় প্রতিটারই গল্প একই রকম। তবে এর ভেতরেও বেশ কিছু চমৎকার ছবি হয়েছে। সেগুলোকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করার দরকার নেই, তবে অস্বীকার করারও উপায় নাই।

অশ্লীল যুগটাকে চার ধাপে বিভক্ত করা যায়— প্রথম ধাপে নায়িকাদের তুলনামুলক ছোট জামা পরানো হতো। দ্বিতীয় ধাপে সাদা জামা পরে বৃষ্টিতে ভেজা, গোসলের দৃশ্য, পোশাক পরিবর্তনের দৃশ্য ইত্যাদি। তৃতীয় ধাপে বিদেশি পর্নগ্রাফির কাটপিস। এবং সবার শেষ ধাপে দেশীয় নায়িকারাই এসব দৃশ্য করেছেন।

অশ্লীল যুগের ট্রেডমার্ক অর্থাৎ চতুর্থ ধাপের ছবিগুলো হলো দুর্ধর্ষ সামসু, নষ্টা মেয়ে, জাদরেল, জাল, জাতশত্রু। এগুলোতে কোন কাটপিস নেই। সরাসরি অভিনেত্রীরাই যৌন দৃশ্যে অভিনয় করেন। একেবারে পর্নগ্রাফির ধরনে দেশি নায়িকাদের রগরগে যৌন দৃশ্য বেশ সময় নিয়ে দেখানো হয়। ওই দশ বছর এই পাঁচ ছবি আলোচনায় থেকেছে। মানুষের মুখে মুখে বিজ্ঞাপনে প্রচুর ব্যবসাও করেছে।

পাঁচ.

বাংলাদেশের ছবিতে অশ্লীলতার ইতিহাস কিন্তু আরো কিছুটা পুরনো। ১৯৯৭ সাল থেকে জুড়ে বসলেও এর অনেক আগে থেকেই এই চর্চা লক্ষ্য করা যায়। সামাজিক ছবি আমাদের দেশে জনপ্রিয় ছিল বেশি। এবং শুরু থেকেই আমাদের দেশে চলচ্চিত্রে প্রতিযোগিতাও ছিল শক্তিশালী। তো, অনেকেই চেয়েছেন প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে। তারা অশ্লীলতা আমদানি করেছেন। এবং যৌনতাকে দেখাবার জন্য বারবার ভারতের দিকে হাত বাড়ানো হয়েছে, সেখান থেকে আর্টিস্ট এনে এক্সপেরিমেন্ট চালানো হয়েছে।

পরিচালক এফ কবির অঞ্জু ঘোষকে নিয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের দর্শকদের খোলামেলা দৃশ্যের সাথে পরিচয় করিয়ে দিলেন। বৃষ্টিতে ভিজে গান। পরে আবুল খায়ের বুলবুল নব্বই দশক জুড়ে ছবিতে বিভিন্ন সময়ে গোসলের দৃশ্য দেখিয়েছে। স্বল্প বাজেটের এসব সিনেমাতে যৌনতা থাকার কারণে ব্যবসায়িক লাভও এসেছে।

মোহাম্মাদ হোসেন অবুঝ দুটি মন ছবিতে চর্চাটা চালিয়ে গেলেন। এই সিনেমায় প্রথম বাংলাদেশের কোন নায়িকাকে সুইমিং পুলে গোসলের দৃশ্য দেখানো হল। নায়িকা ছিলেন মডেল রথি (গুরু জেমসের প্রথম স্ত্রী)। আবুল খায়েল বুলবুলের অন্যায়-অত্যাচার ছবিতে পাহাড়ি ঝর্ণায় গোসলের দৃশ্য দেখা গেল। মোহাম্মদ হোসেন পরে বানালেন রাঙা বউ। এবার নায়িকা কলকাতার ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তা। এ ছবি আলোড়ন তুলল তরুণ সমাজে।

সিডির মাধ্যমে বহুল প্রচারিত এ সময়কার সিনেমা হল এনায়েত করিমের জননেতা, কদম আলী মাস্তান, ক্ষুধার জ্বালা, ইস্পাহানি আরিফ জাহানের গোলাম, বাদশা ভাইয়ের ভয়াবহ।

জননেতা ছবিতে প্রথমবার বাংলাদেশে সরাসরি উন্মুক্ত বক্ষ প্রদর্শন করা হল। কদম আলী মাস্তানও অশ্লীলতার দিক দিয়ে স্মার্ট। ভয়াবহ ছবিতে বি-গ্রেডের নায়িকার আমদানি ঘটল। শরিফুদ্দিন খান দিপু বানিয়েছিলেন বাঁচাও দেশ, পুলিশ অফিসার।

অশ্লীল যুগের সিনেমা বানাতেন মূলত এনায়েত করিম, মোহাম্মদ হোসেন (ফায়ার), শরিফুদ্দিন খান দিপু, স্বপন চৌধুরী, শাহাদাৎ হোসেন লিটন (কঠিন শাস্তি) এবং তার বড় ভাই বাদশা ভাই (লণ্ডভণ্ড, জোগি ঠাকুর), বদিউল আলম খোকন (দানব), রাজু চৌধুরী, এম এ আউয়াল, পল্লী মালেক (ঢাকার কুতুব), এম বি মানিক (জাদরেল), শাহিন-সুমন (নষ্ট), মালেক আফসারী (মরণ কামড়, মৃত্যুর মুখে), মোস্তাফিজুর রহমান বাবু (স্পর্ধা), উত্তম আকাশ আরো অনেকে।

এ ধরনের আরো সিনেমা— ভণ্ড ওঝা, লালু কসাই, নানা ভাই, রানী কেন ডাকাত, দানব সন্তান, মহিলা হোস্টেল, নষ্টা মেয়ে, মডেল গার্ল, রুখে দাঁড়াও, নিষিদ্ধ নারী, নাজেহাল, রক্তচোষা, ক্ষমতা, বস্তির রানী সুরিয়া, আজকের আক্রমণ, পাগলা হাওয়া, আজকের চাঁদাবাজ, ওরা কারা, রিভেঞ্জ, চরম শিক্ষা, বুলেট প্রুফ, বাংলার সৈনিক, নরক, ডেঞ্জার সেভেন, নাইট ক্লাব, বুকের পাটা, নিষিদ্ধ পল্লী, নয়া কসাই, ধমক, ওরা অগ্নি কন্যা, চশমখোর, মুখোশধারী, দুধর্ষ দুর্জয়, রক্ষা নাই, অন্ধকারের চিতা, হঠাও দুর্নীতি, শীর্ষ সন্ত্রাসী গ্রেফতার, লাল চোখ, নিষিদ্ধ যাত্রা, ডেয়ারিং, সন্ত্রাসী ধরো, বিষাক্ত ছোবল, জলন্ত বিস্ফোরণ, ঠ্যাকাবাজ, দুই নাম্বার, দুই মাস্তান, জাদরেল শয়তান ইত্যাদি।

ছয়.

এসব ছবি নির্মিত হয়েছে এফডিসিতে। কাকরাইলে প্রস্তুত হয়ে, সেন্সর বোর্ড ফাঁকি দিয়ে সারাদেশে ছড়িয়ে গেছে। এই লেখার শুরুতে বলা হয়েছে, এ এক অন্ধকার যুগ, গোপন ও ব্যক্তিগত। কারণ এফডিসিতে তখন ব্যাপক অরাজকতা চলছে। নব্বই দশকে যাদের হাতে ক্ষমতা ছিল তা হাতছাড়া হয়ে গেছে। আমজাদ হোসেন, এ জে মিন্টু, শহীদুল ইসলাম খোকনের মতো পরিচালকেরা চাপে পড়ে গেছেন। সিনেমা বানানো বন্ধ করে দিয়েছেন। তৈরি হয়েছে এক বিশাল সিন্ডিকেট। সরকার থেকে শুরু করে গ্রামের হল পর্যন্ত যার বিস্তার। সারাদিন এফডিসিতে অখণ্ড নীরবতা, সন্ধ্যার পরেই আলো জ্বলে উঠেছে সবখানে। শুরু হয়ে গেছে তুমুল ব্যস্ততা। ফ্লোরে ফ্লোরে চলছে শুটিং। মদ-গাঁজা-হেরোইনের গন্ধে মাতাল এফডিসি। সিনেমার কাজে নিরাপত্তা দরকার হয়। ভালো কাজে পুলিশ নিরাপত্তা দেয়, খারাপ কাজে দেয় মাস্তানেরা। এফডিসিতে এসব সত্যিকারের মাস্তান কোণা-কিনারে ঘাপটি মেরে বসে থাকে।

এ সময় নতুন একঝাঁক নারী দিয়ে ভরে যায় এফডিসি। সংখ্যার তারা প্রচুর, চলছে তাদের স্বপ্ন দেখানো, চলছে নষ্টামি। চারিদিকে টাকা ও যৌনতার ছড়াছড়ি। বেশ একটা ফুর্তি ফুর্তি ভাব। সবার মধ্যেই উল্লাস। যখন তখন জামা-কাপড় খুলতে হচ্ছে, জামা-কাপড় না খুললে সেই ছবি লোকে দেখে না।

তবে সবসময় যে স্বেচ্ছায় নায়িকারা এসব কাজ করেছে তা কিন্তু না। নতুন নায়িকাদের সাথে চুক্তি করা হয়েছে, পরে জামা খোলার কথা বলা হয়েছে। তারা রাজি হয়নি অনেক সময়— তখন চুক্তির আইনি ভয় দেখানো হয়েছে, জোর করা হয়েছে, ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে। মাস্তানদের গান পয়েন্টেও অনেক নায়িকারা এসব দৃশ্যে অভিনয় করেছেন।

অনেকসময় মাদকাসক্ত করে অভিনয় করানো হয়েছে। অনেক ছবির দৃশ্য লক্ষ্য করলেই এই অচেতন অবস্থা ধরা পরে। অনেক সময় নায়িকার মুখ না দেখিয়ে শুধু বিবস্ত্র শরীর দেখানো হয়েছে, নারী নিশ্চিতভাবে অচেতন এবং পুরুষের হাত ঘুরে বেড়াচ্ছে তার শরীরে। অধিকাংশ নায়িকাকে ব্ল্যাকমেইল করা হয়েছে— যতটুকু সে করতে চায় তার থেকে বেশি করার জন্য ধারাবাহিক চাপ দেওয়া হয়েছে।

ছবির জন্য যারা ঘর ছেড়েছে, সামাজিক অবস্থান নষ্ট করেছে, মানুষের প্রাচীন তবে গোপন চাহিদা পূরণ করেছে— এই তাদেরকেই চলচ্চিত্র একসময় অস্বীকার করেছে। তাদের দিকে আঙ্গুল তুলেছে, নিষিদ্ধ করেছে। অথচ ঘৃণাটা পাওয়া উচিত সিন্ডিকেটের। সিন্ডিকেটের কাছে দর্শক যেমন অসহায় ছিল তেমন ছিল সমাজ, তেমন ছিল রাষ্ট্র, তেমন ছিল হল, তেমন ছিল সিনিয়র আর্টিস্টরা, একই রকম অসহায় ছিল নায়িকারাও। তাদের কারোই খোঁজ এখন আমরা জানি না।

যাইহোক, এফডিসির অবস্থা তখন এরকমই। সিনেমার মতোই। কাল্পনিক আসলে কিছুই হয়না তারমধ্যে একটু না একটু বাস্তব ঢুকে যায়। নগ্ন হামলা অনেকেরই খুব পছন্দের একটি ছবি। এখানে নায়িকা নদীর চরিত্রটি দেখলে এফডিসির তখনকার স্বভাব খানিকটা বোঝা যাবে। বোঝা যাবে নীতিবানদের ফ্যান্টাসি তখন কী ছিল।

সাত.

শ্রেনী বিভাগের গল্পই মূলত অশ্লীল যুগের গল্প। তাছাড়া প্রতিশোধ পরায়ণতাকে গল্পের মূল উপজীব্য করা হয়েছে। যৌনতা দেখানোর প্রধান বাহন ছিল ধর্ষণ। এমন একটা সিনেমা পাওয়া যাবে না যেখানে ধর্ষণ নেই,  নারী এসেছে পণ্য হিসেবে।

অ্যাকশন ছিল মাত্রারিক্ত, ভায়োলেন্স বা সহিংসতা ছিল আগের যেকোন সময়ের থেকে বেশি। সংলাপ ছিল অসংযত। যখন তখন গালাগাল ও অশ্লীল কথাবার্তা।

ড্রামা থাকতো খুবই কম, মারমার কাটকাট অ্যাকশন এবং গানে গানে সিনেমা শেষ হয়ে যেত। তবে এই পরিস্থিতির মধ্যে থেকেও বেশ কিছু মধ্যম মানের সিনেমা নির্মিত হয়েছে। যেমন মান্নার আমার মা, শাকিব-মান্নার সিটি টেরর, রুবেলের সদর ঘাটের কুলি ও শাকিবের খুনী শিকদার।

ততদিনে মধ্যবিত্ত মুভি দেখা বন্ধ করে দিয়েছে এবং দৃষ্টিশক্তি ফিরে পাওয়ার মতো আবেগে টেলিভিশনে দেশ-বিদেশের গল্প দেখছে, বিশেষ করে হলিউড-বলিউড। কিন্তু দুঃখজনক হলিউড-বলিউডের মানের সাথে পাল্লা দেবার চেষ্টা এদেশে করা হয়নি, বরং ইন্ডাট্রি টিকিয়ে রাখার জন্য গ্রহণ করা হয়েছে ‘পুওর টেকনিক’।

মূলত তখন ছবি বানানো হতো একটা ছোট অংশের দর্শকের উপরে নির্ভর করে। তাদের মন রাখার জন্য প্রায় সবকিছু করা হয়েছে। হয়তো ভেতরে ভেতরে সবাই এটা নিয়ে অস্বস্তিতে ছিল।

ভালো ভালো জনপ্রিয় পরিচালকও বৈপ্লবিক কিছু না করে ‘পুওর টেকনিক’-এর দিকে হেঁটেছেন। চলতি হাওয়ায় গা ভাসিয়েছেন। তাছাড়া অনেক কিছু থেকে বিরত থেকেছেন, সংযত রেখেছেন নিজেকে কিন্তু তাতেও তারা অশ্লীল সিনেমা থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন না।

একসময়ে মধ্যবিত্ত ও নাগরিকদের ধ্যান ভাঙল। টেলিভিশন থেকে মুখ ফিরিয়ে তারা ইন্ডাস্ট্রির দিকে তাকালেন, হতাশ হলেন। বিষয়টা নিয়ে তারা ভাবা শুরু করলেন, পত্র-পত্রিকা সজাগ হলো। জনমত তৈরি হলো, আলোচনার জানলা খুলে গেল ও বাংলা সিনেমা নিয়ে চারিদিকে ছি ছি পড়ে গেল।

আট.

বাংলা চলচ্চিত্রের ভয়ংকর অশ্লীলতার যুগ ২০০৬ সালে এসে কিছুটা দুর্বল হয়ে যায়। ফখরুদ্দীন আহমেদের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে এর প্রকোপ কিছুটা স্তিমিত হল। র‌্যাব হানা দিল কাকরাইলের অফিসগুলোতে। জব্দ করল হাজার হাজার কাটপিস, অগণিত নীল ছবি, অসংখ্য অশ্লীল পোস্টার।

২০০৭ এর শুরু দিকে এফডিসি এবং ইন্ডাস্ট্রির বিভিন্ন অঙ্গনে শুরু হল প্রতিরোধ। শুরু হল অশ্লীলতাবিরোধী আন্দোলন। আন্দোলনের পুরোধা ছিলেন নায়ক মান্না। সাথে যোগ দিলেন কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী। থাকলেন পরিচালক মালেক আফসারী ও ভিলেন ডিপজল। যদিও এরা সবাই অশ্লীল যুগে সক্রিয় ছিলেন। আন্দোলনকে সমর্থন দিল গণমাধ্যম।

অশ্লীলতাবিরোধী আন্দোলন কথাটা শুনলে কিছুটা খটকা লাগে। মনে হয় চলচ্চিত্রে তো অশ্লীলতা থাকতেই পারে। অশ্লীলতা ব্যবহার করার স্বাধীনতা সিনেমা শিল্পের তো থাকা উচিত। আর তাছাড়া সবক্ষেত্রেই নগ্নতা কিন্তু অশ্লীলতা নয়। কখনো নগ্নতা সমাজবাস্তবকেও তুলে ধরতে পারে।

কিন্তু ঐসময়ের চলচ্চিত্রকে নামে বলা হচ্ছে অশ্লীল বাস্তবে এগুলো ছিল অশ্লীলতার থেকেও বেশি কিছু। তখনকার সিনেমাগুলো আলোচিত কারণ চলচ্চিত্রের ভিতরে ঢুকিয়ে দেয়া হতো কাটপিস। যা ছিল মূলত বিদেশি পর্নগ্রাফি ছবির কয়েক মিনিটের একটা কাটপিস। মুক্তি পাওয়া প্রায় প্রত্যেকটা চলচ্চিত্রে এই কাটপিস থাকত। প্রথমদিকে হল মালিকেরা এই কাটপিস ঢুকাতো, পরবর্তীতে প্রডাকশন থেকেই কাটপিস হয়ে বেরুতো। আরো পরে পরিচালকরা নিজেরাই কাটপিস ঢোকাতেন এবং শেষের দিকে নিজেরাই বানাতেন।

‘কাটপিস হলো মূল প্রিন্টের সঙ্গে উপস্থাপিত নয় এরকম কোনো ফুটেজ। কিন্তু পরিবর্তিত অর্থে, কাহিনীর সঙ্গে একেবারে সম্পর্কহীন জুড়ে দেওয়া পর্নগ্রাফিক রিলকেই আমরা কাটপিস বুঝে থাকি। এটি ছবির যেকোনো পর্যায়ে দেখানো হতে পারে, সাধারণত মাঝামাঝি, বিরতির আগে বা পরে এটি দেখানো হয়ে থাকে। সাধারণত এটি একটি গানের দৃশ্য হয়ে থাকে, তবে স্নানের দৃশ্যও হতে পারে; এমনকি সঙ্গমের দৃশ্যও হতে পারে।’— এমনটা বলেন শিক্ষক ও গবেষক ফাহমিদুল হক।

অশ্লীলতাবিরোধী আন্দোলন মূলত কাটপিসের বিরুদ্ধে আন্দোলন। তাই বর্তমানের আইটেম সং এর সাথে অশ্লীল যুগের তুলনা দেওয়ার কোন প্রশ্নই আসে না।

অশ্লীল যুগের সিনেমা নিয়ে অনেকের কখনোই কোন সমস্যা ছিল না। সেইসময়ের লো-বাজেটের সিনেমাগুলোর আলাদা একটা ফরমেশন ছিল। মূল সিনেমাগুলো অ্যাকশন-থ্রিলার জনরার হতো। আমেরিকার এইটিজের রেট্রোর একটা আবহ ছিল। ভায়োলেন্স ছিল প্রচুর। এবং কিছু কিছু কাহিনী ছিল দেশের তুলনায় খুবই ডার্ক এবং তা অবশ্যই এবং অবশ্যই সমাজবাস্তবতাকে প্রতিফলিত করেছে। তেমন একটা সিনেমা নগ্ন হামলা। আরো একটা সিনেমা জেল থেকে বলছি।

ওই যুগের অবসানের পর বাংলাদেশের ডিস্ট্রিবিউটররা ইউটিউবে চলে আসছে। এ কারণে আমরা অশ্লীল যুগের প্রায় সব সিনেমাই কাটপিস ছাড়া দেখতে পারছি।

যাইহোক, অশ্লীল সিনেমার বিরুদ্ধে আন্দোলন ও সমালোচনা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় ময়ূরী, মুনমুন, পলিসহ বেশ কয়েকজন অশ্লীল নৃত্যের নায়িকাকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নিষিদ্ধের কেউ কেউ এখন সিদ্ধ হয়েছেন, হয়তো আগামীতে প্রসিদ্ধ হবেন। তবে এ কথা নিশ্চয় অনেকেই স্বীকার করবেন— নিষিদ্ধ ভালো কিছু নয়।

২০০৭ সালের পর শাকিব-শাবনূর অভিনীত জন্ম দিয়ে হাওয়া খানিকটা বদল হয়। তারপরে ডিপজল এসে শাকিবকে নিয়ে কিছু সিনেমা নির্মাণ করেন যার কারণে ইন্ডাস্ট্রি অশ্লীল যুগ থেকে একরকমের মুক্তি পায়।

এখন ২০১৭ সাল চলছে। এতদিন পরে এসে দেখা যায় চরমভাবে অশ্লীল যুগকে এড়িয়ে যাওয়া হয়। যেন ঐ দশ বছরে কোন ভালো ছবি হয়নি। যেন ঐ দশ বছর বাংলা চলচ্চিত্রের ইতিহাসের নিষিদ্ধ বছর।

এটা আসলে সংকীর্ণ মানসিকতা। ঐ সময়েও ভালো ভালো কিছু ছবি হয়েছে। যেগুলোতে অশ্লীলতা বিজ্ঞাপন হিসেবে এসেছে কিন্তু ছবির মানকে তা ক্ষতি করেনি। এরকম কিছু ছবি এখনো অনেকে দেখে, এড়িয়ে যায় না। আর যদি কেউ এড়িয়েও যায়, এসব ছবিকে অস্বীকার করা যাবে কি?


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

Shares