Select Page

আহমেদ জামান চৌধুরীঃ সোনালি যুগের সোনালি মানুষ

আহমেদ জামান চৌধুরীঃ সোনালি যুগের সোনালি মানুষ
Ahmed Zaman Chowdhury

আহমেদ জামান চৌধুরী

বিশ্ব চলচ্চিত্র নিয়ে বিরাট জ্ঞান রাখা এই যুগের বাংলা সিনেমাবোদ্ধাদের যদি জিজ্ঞেস করেন, ‘পিচ ঢালা পথ’ ছবিটি দেখেছেন?’ উত্তরে শুনবেন ”হ্যাঁ দেখেছি। দারুন ছবি”। কিন্তু যদি জিজ্ঞেস করেন ‘পিচ ঢালা পথ’ ছবিটির কাহিনী ও চিত্রনাট্য কে লিখেছেন? তখন দেখবেন ঐ বোদ্ধারা আমতা আমতা করছেন। কারন উনারা বিদেশি নিয়ে যত জ্ঞান রাখেন দেশের বেলায় তা ২০ ভাগও নেই। আর এই অবহেলা, অসম্মান নিয়েই আমাদের অনেক গুণীরা নীরবে চলে যান। এই দেশে আর নতুন কোন গুণীর জন্ম হয়না।

বাংলা চলচ্চিত্রের সোনালি যুগের এক সোনালি মানুষের নাম আহমেদ জামান চৌধুরী। যার কাছে এই বাংলা চলচ্চিত্র, দর্শক’রা অনেক অনেক ঋণী । যিনি একজন চলচ্চিত্র সাংবাদিক, কাহিনীকার, চিত্রনাট্য ও সংলাপ রচয়িতা এবং গীতিকার ছিলেন। চলচ্চিত্রকে অনেক বেশি ভালোবাসতেন। তিনি অধুনালুপ্ত সাপ্তাহিক চিত্রালীর সাবেক সম্পাদক। তিনি এ যাবৎ শতাধিক চলচ্চিত্রের কাহিনী, চিত্রনাট্য ও সংলাপ লিখে ঢাকার চলচ্চিত্রকে করেছেন ব্যাপকভাবে সমৃদ্ধ। রাজ্জাক এর ”নায়করাজ” উপাধিটা এই মানুষটারই দেয়া তা হয়তো অনেকেই জানেন না। অভিনেত্রী ববিতা প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (বাংলাদেশের কোন অভিনেত্রীর জাতীয় চলচ্চিত্রের প্রথম পুরস্কার) পেয়েছিলেন এই আহমেদ জামান চৌধুরীর নির্মিত ”বাদী থেকে বেগম” ছবির জন্য।

আহমেদ জামান চৌধুরীর জন্ম ১৯৪৭ সালের ২৮ ডিসেম্বর চাঁদপুরে । পাঁচ ভাই এবং দুই বোনের মধ্যে আহমদ জামান চৌধুরীর অবস্থান সর্বকনিষ্ঠ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজতত্ত্ব বিষয়ে অনার্সসহ মাস্টার্স করেছেন তিনি। ১৯৭০ সালে ‘সাপ্তাহিক চিত্রালী’র মাধ্যমে সাংবাদিকতা শুরু করেন । এরপর নানা দায়িত্ব পালন শেষে পত্রিকাটির সম্পাদনার দায়িত্বও পালন করেন দীর্ঘ ১০ বছর। সব মিলিয়ে চিত্রালীর সঙ্গে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন দীর্ঘ ২০ বছর। চিত্রালীর পর তিনি দু’বছর ফিচার এডিটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায়। প্তাহিক চিত্রালীর সম্পাদক আহমেদ জামান চৌধুরী ছিলেন আজাচৌ নামে খ্যাত। তিনি এই নামে চিত্রালীতে ‘হাওয়া থেকে পাওয়া’ শিরোনামে সিনেমা সংশ্লিষ্ট লেখা লিখতেন। এছাড়াও তিনি দৈনিক আমার দেশ পত্রিকায় খাসওয়ালাদের খাস খবর নামে রাজনীতির পাতায় ব্যঙ্গাত্মক কলাম লিখতেন। ১৯৬৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রিতে প্রথম শ্রেণী পেয়ে পাস করেন। শিক্ষা জীবন শেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। কিন্তু শিক্ষকতা যেন তার ধাতে সয় না। তাকে টানে চলচ্চিত্র জগৎ। সিনেমা জগতে রঙ্গিন আকর্ষণের টানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিৰকতার লোভনীয় পদ ছেড়ে যোগ দেন সাপ্তাহিক চিত্রালীতে। সেই সময় সাপ্তাহিক চিত্রালীর সম্পাদক ছিলেন বিখ্যাত সিনেমা সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ পারভেজ। তাঁর পরলোকগমনের পর ১৯৭৮ সালে আহমেদ জামান চৌধুরী চিত্রালীর সম্পাদক হন। সেই থেকে শুরু। তারপর আর তাঁকে পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যনত্দ দীর্ঘ বিশ বছর তিনি উক্ত পদে কাজ করে গেছেন নিরলসভাবে। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী আহমেদ জামান চৌধুরীর লেখা প্রথম কাহিনী চিত্রনাট্য ‘ছবি নতুন নামে ডাকো।’ এছাড়াও তাঁর লিখা গল্প ও চিত্রনাট্যে দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে পিচঢালা পথ, নাচের পুতুল, বাঁদি থেকে বেগম, আগুন,মাস্তান, তুফান, শেষ উত্তর, লাভ ইন সিঙ্গাপুর, শ্বশুর বাড়ি, মিস লঙ্কা, রাতের পরদিন, দূরদেশ, সুখ-দুঃখের সাথীসহ, রাঙা ভাবী , আত্ম অহংকার এর মতো অনেক সুপারহিট চলচ্চিত্র।

তাঁর লেখা ব্যাপক জনপ্রিয় কিছু গানের মধ্যে রয়েছে পিচঢালা এ পথটারে ভালবেসেছি, যেও না সাথী, নতুন নামে ডাকবো তোমায়, কে তুমি এলে গো, ও দরিয়ার পানি, এ বৃষ্টিভেজা রাতে চলে যেও না, চুরি করেছো আমার মনটা, মাগো তোর কান্না আমি সইতে পারি না, যাদু বিনা পাখি যেমন বাঁচিতে পারে না, এক বুক জ্বালা নিয়ে বন্ধু তুমি কেন একা বয়ে বেড়াও, বিদায় দাওগো বন্ধু তোমরা এবার দাও বিদায়, প্রেম পিরিতি চাই বলে সবাই আমায় পাগল বলে প্রভৃতি।

আজ চলচ্চিত্রে যখন নকল ছবির গল্প নিয়ে সোচ্চার তখন কেউ কি একজন আহমেদ জামান চৌধুরীর কাজগুলো থেকে কি কোন শিক্ষা বা প্রেরণা নিয়েছেন কি কিভাবে মৌলিক গল্প লিখা যায় ? বিদেশীদের কাছ থেকে তো অনেক কিছুই শিখলেন এবার না হয় আমাদের দেশের গুণীদের কাছ থেকে কিছু শিখুন।।


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

স্পটলাইট

Movies to watch in 2018
Coming Soon

[wordpress_social_login]

Shares