Select Page

সুপারস্টার ইলিয়াস কাঞ্চনের গল্প বলি

সুপারস্টার ইলিয়াস কাঞ্চনের গল্প বলি

বাংলা চলচ্চিত্রের গত শতাব্দি ছিল অনেক গুণী মানুষের আলোয় আলোকিত। সেই সময়ের বাংলাদেশের চলচ্চিত্রগুলো ছিল সাধারণ মানুষদের কাছে দারুণ জনপ্রিয়, আর মানুষগুলো ছিলেন এক স্বপ্নের নায়ক বা নায়িকা। সেই সোনালি যুগের দুই দশক ছিল ইলিয়াস কাঞ্চন নামের এক ‘সুপারস্টার’-এর বিচরণ যিনি অভিনয় দিয়ে কোটি মানুষের মন জয় করে নিয়েছিলেন। জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকায় ‘সুপারস্টার’ খেতাব পেয়েছিলেন চলচ্চিত্রপ্রেমীদের কাছ থেকে। 

ইলিয়াসের ছবি দেখেনি এমন দর্শক পাওয়া যাবে না। তিনি খুব ধার্মিক রক্ষণশীল পরিবার থেকে চলচ্চিত্রে জড়িয়ে ছিলেন। কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলায় আশুতিয়াপাড়া  গ্রামে ১৯৫৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর জন্ম। বাবার নাম হাজি আব্দুল আলী, মা সরুফা খাতুন।  কবি নজরুল সরকারি কলেজ থেকে ১৯৭৫ সালে এইচএসসি পাস করেন এবং ঢাকায় জগন্নাথ  বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েও পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ১৯৭৬ সালে ভর্তি হোন। চলচ্চিত্রে জড়ানোর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা ঠিকমতো শেষ করতে পারেননি।

১৯৭৭ সালে বাংলা চলচ্চিত্রের প্রবাদ পুরুষ সুভাষ দত্তের ‘বসুন্ধরা’ ছবির মাধ্যমে রূপালি জগতে পা রাখেন। কাঞ্চনের মঞ্চ নাটকের অভিনয় দেখে ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন সুভাষ দত্ত। বন্ধ হয়ে যাওয়া সিনে পত্রিকা ‘চিত্রালি’তে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, চলচ্চিত্র অভিনয় শুরুর পর অনেক দিন বাবা-চাচারা উনার সঙ্গে কথা বলেনি। তবুও কাঞ্চন চলচ্চিত্রে অভিনয় করা থেকে সরে আসেননি। এক সময় পরিবার মেনেও নেয়।

শুরুতে ইলিয়াস কাঞ্চন নিজের মেধা ও অভিনয় দিয়ে সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়ে যান এবং ধীরে ধীরে নিজেকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে নিয়ে যান। সেই  শৈশবে পরিবারের সঙ্গে সিনেমা হলে গিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চনের সঙ্গে আমার পরিচয়। যত দূর মনে পড়ে আজিজুর রহমান বুলির ‘শেষ উত্তর’ সিনেমায় শাবানার বিপরীতে প্রথম দেখি। এরপর  ‘বাল্যশিক্ষা’,  ‘আঁখি মিলন’, ‘কুসুমকলি’, ‘নালিশ’,  ‘নসীব’-এর  মতো জনপ্রিয় সিনেমাতেও  তাকে  দেখি যেখানেও ছিলেন দারুণ। মোস্তফা আনোয়ার পরিচালিত ‘আঁখি মিলন’ ছবিতে কাঞ্চনকে বেশি প্রথম আমার ভালো লাগে। সেই ছবির ‘আমার গরুর গাড়িতে’ গানটি ছিল আমার সবচেয়ে প্রিয় গান। কেউ যখন আদর করে বলতো একটা গান শোনাও তো তখনই ‘আমার গরুর গাড়িতে’ শুনিয়ে দিতাম।

এরপর কাঞ্চনকে দেখেছি বহু ছবিতে কখনো রোমান্টিক নায়ক, কখনো প্রতিবাদী যুবক, কখনো পুলিশ অফিসার, কখনো রাজকুমার, কখনো ট্যাক্সি ড্রাইভারসহ নানা রূপে, নানা চরিত্রে কাঞ্চনকে দেখেছিলাম আর সব রূপেই কাঞ্চন নিজেকে দারুণভাবে মিশিয়ে দিয়ে মন উজাড় করে অভিনয় করতেন। ইলিয়াস কাঞ্চন পর্দায় এলেই দর্শকদের হাততালি যেন আর থামে না। আজহারুল ইসলাম খানের ‘সহযাত্রী’ ও শিবলী সাদিক পরিচালিত ‘ভেজা চোখ’ ছবিতে ইলিয়াস কাঞ্চনের মৃত্যু হলভর্তি দর্শকদের সঙ্গে আমার কিশোর মনও মেনে নিতে পারেনি। খুব খারাপ লেগেছিল কাঞ্চনের মৃত্যু দেখে।

‘দায়ী কে’ ছবিতে কাঞ্চনকে প্রথম মনে হয়েছিল নায়ক হয়েও যেন পার্শ্ব অভিনেতা। পরে বুঝলাম আসলেই ‘দায়ী কে’ ছবিতে তার করার কিছু ছিল না, পুরো ছবিটাই যে এ টি এম শামসুজ্জামান নামক এক অসাধারণ অভিনেতার সেরা অভিনয়সমৃদ্ধ। যে কারণে তিনি জীবনের প্রথম ও শেষবারের মতো নায়ক না হয়েও ‘শ্রেষ্ঠ অভিনেতা’র পুরস্কার লাভ করেন। ওয়াসিম-ফারুকের পর বাংলা ফোক ফ্যান্টাসি ছবিতে কাঞ্চন নিজেকে সেরা হিসেবে প্রমাণ করেন। তার অভিনীত ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ ছবিটি আজও বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবির রেকর্ড নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছে। সেই ছবির পর কাঞ্চন ফোক ছবির অপরিহার্য অভিনেতা হয়ে ওঠেন।

বাংলা চলচ্চিত্রের অনেক জনপ্রিয় গানের কথা মনে হলেই ভেসে উঠে ইলিয়াস কাঞ্চনের কথা, কারণ সেই সকল গানে পর্দায় ঠোঁট মিলিয়েছিলেন তিনি। প্লেব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোরের কণ্ঠের সঙ্গে ইলিয়াস কাঞ্চন যেন মিলেমিশে একাকার। সেই সময় রেডিওতে মুক্তিপ্রাপ্ত যত জনপ্রিয় সিনেমার গান প্রচার হতো তার অর্ধেকই ছিলো ইলিয়াস কাঞ্চনের ঠোঁটে জনপ্রিয় হওয়া এন্ড্রু কিশোরের গান।  ‘আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে’, ‘কথা বলবো না, বলেছি’, ‘আজ রাত সারা রাত জেগে থাকবো’, ‘সত্য কি? মিথ্যে কি?’, ‘পৃথিবীর যত সুখ, ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘তুই তো কাল চলে যাবি’, ‘প্রিয়া আমার প্রিয়া’, ‘তুমি চেনো কি আমারে’, ‘আমরা বাপবেটা ৪২০’, ‘আর যাবো না আমেরিকা’, ‘আমার মনের আকাশে আজ জ্বলে শুকতারা’, ‘বেলি ফুলের মালা দিয়ে’, ‘আমি আজ কথা দিলাম আই লাভ ইউ’, ‘ ভালোবাসা যত বড় জীবন তত বড় নয়’, ‘আমার এ গান তোমারই জন্য’,  ‘আমরা দুজন চিরসাথী’, ‘সবার জীবনে প্রেম আসে’— এমন অসংখ্য গান আছে যা মনে হলেই ইলিয়াস কাঞ্চন এর কথা মনে আপনার পড়বেই।

অভিনয় জীবনে সহশিল্পী হিসেবে অনেকের সঙ্গেই অভিনয় করেছিলেন কিন্তু চম্পা ও দিতির সঙ্গে কাঞ্চনের জনপ্রিয়তা বেশি ছিল। বিশেষ করে ৮০-র দশকের শেষ ভাগ থেকে ৯০ দশকে চম্পা ও দিতির সঙ্গে কাঞ্চনের ছবিগুলো ছিল ব্যবসায়িক সফলতায় ভরপুর। যদিও অভিনয় জীবনের সেরা ব্যবসাসফল ছবিটি ছিল চিত্রনায়িকা অঞ্জুর সঙ্গে, তারপরেও অঞ্জুকে ছাপিয়ে দর্শকদের কাছে বেশি জনপ্রিয় ছিল কাঞ্চন-চম্পা ও কাঞ্চন–দিতি জুটির ছবিগুলো।

কাঞ্চন ২৫০টির মতো ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে যেমন আলমগীর, রাজ্জাক, উজ্জ্বল, ওয়াসিম, সোহেল রানা, বুলবুল আহমেদের মতো নায়কদের সঙ্গে পর্দায় দ্বিতীয় নায়ক হয়ে অভিনয় করেছিলেন ঠিক তেমনি ক্যারিয়ারের মাঝপথে জসিমের সঙ্গেও পর্দায় সহনায়ক হিসেবে অভিনয় করেছিলেন, অথচ নায়ক চরিত্রে জসিমের আগেই কাঞ্চন জনপ্রিয়-সিনিয়র ছিলেন তবুও জসিমের নাম ভূমিকায় থাকা সিনেমাতেও তিনি অভিনয় করেছিলেন— যা একজন প্রকৃত অভিনেতার উদারতার পরিচয়।

৯০ দশকের শুরুতে কামারুজ্জামান পরিচালিত ‘মাটির কসম’ ছিল তার অভিনয় জীবনের ১০০ তম ছবি। উল্লেখযোগ্য হলো— বসুন্ধরা, সুন্দরী,  বাল্যশিক্ষা, আঁখি মিলন, কুসুমকলি, আদেশ, সেই তুফান, দয়ামায়া, হুঁশিয়ার, রাধাকৃষ্ণ, অভিযান, নীতিবান, স্বর্গ নরক, ছেলে কার, সহযাত্রী, সহধর্মিণী, প্রতিরোধ, দায়ী কে, ভাই বন্ধু, ভেজা চোখ, বেদের মেয়ে জোছনা, আয়না বিবির পালা, প্রেমের প্রতিদান, দংশন, জন্মদাতা, অচেনা, বাপবেটা ৪২০, মা মাটি দেশ, প্রেমযমুনা, গাড়ীয়াল ভাই, চাকর, মহাগ্যাঞ্জাম, আমার আদালত, আবদার, সৎ মানুষ, ত্যাগ, অন্তর জ্বালা, স্বার্থপর, এই নিয়ে সংসার, আসামি গ্রেফতার, বিক্রম, পাষাণ, ভয়ংকর সাত দিন, ভাঙচুর, স্বজন, বেইমানি, অবলম্বন, আত্মবিশ্বাস, বেনাম বাদশা, বাদশা ভাই, অগ্নি সাক্ষর, অজানা শত্রু, বাঁশিওয়ালা, সিপাহী, বিদ্রোহী কন্যা, বেপরোয়া, আত্মত্যাগ, চরম আঘাত, অন্ধ ভালোবাসা, আদরের সন্তান, দুর্নীতিবাজ, জবরদখল, বদসুরতসহ অনেক অনেক চলচ্চিত্র।

ইলিয়াস কাঞ্চনকে  বাংলাদেশের  চলচ্চিত্রের ‘সুপারস্টার’ বলা হতো (যদিও কাঞ্চন কোনদিন তা নিজের মুখে বলেননি বা বলতেন না)। তিনি যখন সুপারস্টার তখন ‘বেদের মেয়ে জোছনা’ চলচ্চিত্র দিয়ে এমন একটি রেকর্ড করলেন যা আজও কোন নায়ক ভাঙতে পারেননি। কাঞ্চন একাধারে তখন জনপ্রিয় অভিনেতা/নায়ক, তার ওপর একজন প্রযোজকও ছিলেন। কিন্তু এরপরেও কাঞ্চনের মাঝে কোন পরিবর্তন কেউ কোনদিন পায়নি।

সুপারস্টার কাঞ্চন তখন যেমন একক চলচ্চিত্র দিয়ে পর্দা কাঁপাতেন ঠিক তেমনি একাধিক তারকা সমৃদ্ধ ‘মাল্টিস্টার’ চলচ্চিত্রগুলো দিয়েও পর্দা কাঁপাতেন। কাঞ্চনের তখনকার কয়েকটি চলচ্চিত্র ছিলো অচেনা, বন্ধন, বিশ্বাস অবিশ্বাস, শর্ত, দুর্নাম, দংশন, সিপাহী, বাদশা ভাই, বাপ বেটা ৪২০, মা মাটি দেশ, পাষাণ, বীর বিক্রম, বিদ্রোহী কন্যা, দুর্নীতিবাজ, দুর্জয়, মহৎ, এই নিয়ে সংসার, চরম আঘাত, ভাঙচুর, স্বজন, আসামী গ্রেফতার-সহ আরও অনেক। যে চলচ্চিত্রগুলোর মাঝে কাঞ্চন একক নায়ক ছিলেন না সঙ্গে ছিলেন রাজ্জাক, আলমগীর, জসিম, মান্না, বাপ্পারাজ, আলিরাজ , রুবেল, সানী , অমিত হাসান-সহ প্রবীণ-নবীন জনপ্রিয় নায়কেরা।

কাঞ্চনের তখন যে দাপট ছিল চাইলে তিনি একক নায়ক ছাড়া চলচ্চিত্র নাও করতে পারতেন এবং প্রযোজক, পরিচালকরা তা মানতেও বাধ্য থাকতো। কারণ একক নায়ক হিসেবে কাঞ্চনের চলচ্চিত্রের চাহিদা সর্ব মহলের কাছে স্বীকৃত ছিলো। অথচ কাঞ্চন কোনদিন সেই ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি। কাঞ্চন একক নায়ক হিসেবে যেভাবে দারুণ সফল ছিলেন এবং পর্দায় যেভাবে থাকতেন ঠিক অন্য তারকাদের সঙ্গেও নিজেকে মেলে ধরতেন।

কাঞ্চনের কাছে নিজেকে ‘সুপারস্টার’ ইমেজে রাখার চেয়ে বেশি গুরুত্ব ছিল সব শ্রেণির দর্শক, প্রযোজক, পরিচালকদের চাহিদার গুরুত্ব দেয়া এবং বাংলাদেশের চলচ্চিত্রকে সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যাওয়া। এমনকি ‘নাম্বার ওয়ান কাঞ্চন’, ‘বস নাম্বার ওয়ান’, ‘হিরো নাম্বার ওয়ান’ কিংবা ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’ এই টাইপ নামের কোন চলচ্চিত্রে অভিনয়ও করেননি।  সেই কারণে ‘সুপারস্টার’ তকমাটা যখনই কোন নায়ককে আজ বলা হয় তখনও সত্যিকারের চলচ্চিত্রপ্রেমী সবার কাছে  ইলিয়াস কাঞ্চনের মুখটি ভেসে ওঠে।

এখন আমার কথা শুনে আজকের কেউ যদি মনে করে থাকে ইলিয়াস কাঞ্চন কোন ‘সুপারস্টার’ ছিলো না, সব মিথ্যা বানোয়াট! তাহলে তাকে বোঝানোর কিছু নেই, কারণ আমার কথা মিথ্যা প্রমাণ করার জন্য সেই সময়কার লাখ লাখ দর্শক আজও জীবিত আছে, যারা আমার কথার দ্বিমত পোষণ করতে পারেন উপযুক্ত উদাহরণ প্রমাণসহ। আজকে বাংলা চলচ্চিত্রে যাকে বা যাদের সুপারস্টার বলা হয় তারা কেউই ‘সুপারস্টার’ তকমাটা লাগানোর যোগ্য নন। শুধু নায়ক শূন্যতার সময়ে বছর বছর কয়েকটি তথাকথিত ব্যবসাসফল চলচ্চিত্র দিলেই কেউ ‘সুপারস্টার’ হয় না, সুপারস্টার হতে হলে পর্দা ও পর্দার বাইরেও একজন ভালো মানুষ হতে হয়।

ক্যারিয়ারের সেরা সময়ে ৯০ দশকের শুরুতে এক সড়ক দুর্ঘটনায় স্ত্রী জাহানারাকে হারানোর পর থেকে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ নামের সামাজিক সংগঠন গঠন করে নিরাপদ সড়কের দাবিতে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলেন এবং এখনো নিজেকে সেই আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন, যা সব শ্রেণির মানুষের কাছে আজ আলোচিত একটা আন্দোলন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।

ইলিয়াস কাঞ্চন তার অভিনয় জীবনেই নিজেকে কিংবদন্তির পর্যায়ে নিয়ে গেছেন। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের সোনালি সময়ের সেরা মানুষগুলোর অন্যতম একজন তিনি যার কাজগুলো তাকে চিরস্মরণীয় রাখবে এবং যত দিন বাংলাদেশের চলচ্চিত্র থাকবে তত দিন ইলিয়াস কাঞ্চন নামটি থাকবে। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের ইতিহাসে ইলিয়াস কাঞ্চন যেন সত্যিই এক ‘সুপারস্টার’।


অামাদের সুপারিশ

মন্তব্য করুন

ই-বুক ডাউনলোড করুন

BMDb ebook 2017

Shares